০৪:৫৭ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

নেপাল-বাংলাদেশ-ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে জয়শঙ্করের সাক্ষাৎ

নেপাল, ভুটান এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ২৯ মার্চ, মঙ্গলবার, কলম্বোয় অনুষ্ঠিত ১৮ তম বিমসটেক মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে অংশ নিয়ে পূর্বোক্ত মন্ত্রীদের সাথে সাক্ষাৎ করেন তিনি।

পরবর্তীতে একাধিক টুইটবার্তায় সাক্ষাতের বিষয়ে নিশ্চিত করেন জয়শঙ্কর নিজেই। নেপালি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করে জয়শঙ্কর লিখেছেন, “বিমসটেক বৈঠকের ফাঁকে নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নারায়ণ খড়কার সাথে বৈঠক হলো। সংযোগ, শক্তি, সার, স্বাস্থ্য এবং বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাঁর সাথে। রামায়ণ সার্কিটকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দিকে মনোনিবেশ করতে সম্মত হয়েছি আমরা।”

নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আসন্ন ভারত সফরকে কেন্দ্র করেও মতবিনিময় করেন জয়শঙ্কর এবং নারায়ণ খড়কার।

এছাড়া, ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তান্ডি দর্জির সাথে সাক্ষাতের বিষয়েও একটি টুইট করেন জয়শঙ্কর। সেখানে তিনি লিখেছেন, “ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ পেয়ে বরাবরের মতোই আনন্দ অনুভূত হচ্ছে। জলবিদ্যুৎ খাতে আমাদের দীর্ঘস্থায়ী সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। অন্যান্য বিভিন্ন প্রকল্প এবং উদ্যোগ পর্যালোচনা করেছি। আমাদের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে ভুটানিদের প্রতিভা সম্পর্কে কথা বলেছি। তাঁর সঙ্গে কাজ চালিয়ে যেতে উন্মুখ।”

পরবর্তীতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সাথেও সাক্ষাৎ হয় এস জয়শঙ্করের। প্রতিবেশীর সাথে সাক্ষাৎ নিয়ে জয়শঙ্কর লিখেছেন, “বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেনের সাথে সাক্ষাৎ হলো। তাঁকে দেখে অনেক ভালো লাগছে। দ্রুত তাঁকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছি।”

এর আগে কলম্বোয় অবস্থানকালে গত সোমবার থাইল্যান্ডের উপ প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন জয়শঙ্কর। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

নেপাল-বাংলাদেশ-ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে জয়শঙ্করের সাক্ষাৎ

প্রকাশ: ০৭:০৪:২৭ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৯ মার্চ ২০২২

নেপাল, ভুটান এবং বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের সাথে সাক্ষাৎ করেছেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। ২৯ মার্চ, মঙ্গলবার, কলম্বোয় অনুষ্ঠিত ১৮ তম বিমসটেক মন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠকে অংশ নিয়ে পূর্বোক্ত মন্ত্রীদের সাথে সাক্ষাৎ করেন তিনি।

পরবর্তীতে একাধিক টুইটবার্তায় সাক্ষাতের বিষয়ে নিশ্চিত করেন জয়শঙ্কর নিজেই। নেপালি পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করে জয়শঙ্কর লিখেছেন, “বিমসটেক বৈঠকের ফাঁকে নেপালের পররাষ্ট্রমন্ত্রী নারায়ণ খড়কার সাথে বৈঠক হলো। সংযোগ, শক্তি, সার, স্বাস্থ্য এবং বিদ্যুৎ খাতে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাঁর সাথে। রামায়ণ সার্কিটকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার দিকে মনোনিবেশ করতে সম্মত হয়েছি আমরা।”

নেপালের প্রধানমন্ত্রী শের বাহাদুর দেউবার আসন্ন ভারত সফরকে কেন্দ্র করেও মতবিনিময় করেন জয়শঙ্কর এবং নারায়ণ খড়কার।

এছাড়া, ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী তান্ডি দর্জির সাথে সাক্ষাতের বিষয়েও একটি টুইট করেন জয়শঙ্কর। সেখানে তিনি লিখেছেন, “ভূটানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাক্ষাৎ পেয়ে বরাবরের মতোই আনন্দ অনুভূত হচ্ছে। জলবিদ্যুৎ খাতে আমাদের দীর্ঘস্থায়ী সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হয়েছে। অন্যান্য বিভিন্ন প্রকল্প এবং উদ্যোগ পর্যালোচনা করেছি। আমাদের প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠানে ভুটানিদের প্রতিভা সম্পর্কে কথা বলেছি। তাঁর সঙ্গে কাজ চালিয়ে যেতে উন্মুখ।”

পরবর্তীতে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সাথেও সাক্ষাৎ হয় এস জয়শঙ্করের। প্রতিবেশীর সাথে সাক্ষাৎ নিয়ে জয়শঙ্কর লিখেছেন, “বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী আব্দুল মোমেনের সাথে সাক্ষাৎ হলো। তাঁকে দেখে অনেক ভালো লাগছে। দ্রুত তাঁকে ভারত সফরের আমন্ত্রণ জানিয়েছি।”

এর আগে কলম্বোয় অবস্থানকালে গত সোমবার থাইল্যান্ডের উপ প্রধানমন্ত্রী ও পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সাথে সাক্ষাৎ করেছিলেন জয়শঙ্কর। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক