১০:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাসীদের নাশকতার ছক আটকালো ভারত

নতুন করে জম্মু ও কাশ্মীরকে অশান্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে পাক মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদীরা। খবর রয়েছে ফের ভূস্বর্গে বড় সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাতে পারে জঙ্গিরা। সেই খবর পাওয়া মাত্রই তৎপর হয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। চালানো হচ্ছে সাড়াশি তল্লাশি অভিযান। এতেই মিলেছে সাফল্য।

জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপের (এসওজি) সঙ্গে অভিযান চলিয়ে পাকিস্তান ভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার শাখা রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট কর্তৃক ড্রোন দ্বারা ভারতের অভ্যন্তরে ফেলে দেওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদের একটি বিশাল চালান উদ্ধার করেছে ভারতীয় সেনা। এর মাধ্যমে কাশ্মীরে বড় সন্ত্রাসবাদী হামলার চক্রান্ত ব্যর্থ করা হয়েছে।

২৪ ফেব্রুয়ারী, বৃহস্পতিবার, জম্মু পুলিশ জানিয়েছে, জম্মু জেলার আরএসপুর মহকুমার আর্নিয়া এলাকায় পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর নির্দেশে এই গোলাবারুদ ফেলে যাওয়া হয়েছে। পাকিস্তান ভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার শাখা দ্য রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট ড্রোনের সাহায্যে অস্ত্র ও গোলাবারুদ ফেলে গিয়েছে ভারতে থাকা সন্ত্রাসবাদীদের সাহায্যার্থে। এমনটা তথ্য পাওয়ার পরেই ময়দানে নামে যৌথ বাহিনী। ব্যপক তল্লাশি অভিযান শুরু করে স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ। অনুসন্ধানের সময়েই আরএসপুর মহকুমার আর্নিয়া এলাকা থেকে উদ্ধার হয় বিপুল অস্ত্র ও বিস্ফোরক পদার্থ।

তল্লাশি অভিযানের সময় আর্নিয়ার ত্রেভা গ্রাম থেকে রাতে ড্রোনের মাধ্যমে ফেলে যাওয়া তিন বাক্স অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে ০৩ টি ডেটোনেটর, ০৩ টি রিমোট-নিয়ন্ত্রিত আইইডি, ০৩ টি বিস্ফোরক বোতল, কর্ডটেক্স তারের ০১ টি বান্ডিল, ০২ টি টাইমার আইইডি, ০১ টি পিস্তল, ০২ টি ম্যাগাজিন, ০৬ টি গ্রেনেড এবং ৭০ রাউন্ড গুলি। বিশেষজ্ঞদের মতে এই অস্ত্র উদ্ধারের ফলে বিরাট নাশকতা এড়ানো গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভারতের ১০০ থেকে ১৫০ মিটারের মধ্যে ঢুকে পড়ে পাকিস্তানি ড্রোন। রাতের অন্ধকারে ড্রোন দেখতেই হামলা চালায় বিএসএফ। কিন্তু তাতেও নামানো যায়নি ড্রোনটিকে। জানা যায়, তা ফের পাকিস্তান সীমান্তের দিকে উড়ে যায়।

খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

জম্মু ও কাশ্মীরে সন্ত্রাসীদের নাশকতার ছক আটকালো ভারত

প্রকাশ: ০৫:৫৩:১৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২

নতুন করে জম্মু ও কাশ্মীরকে অশান্ত করার চেষ্টা চালাচ্ছে পাক মদতপুষ্ট সন্ত্রাসবাদীরা। খবর রয়েছে ফের ভূস্বর্গে বড় সন্ত্রাসবাদী হামলা চালাতে পারে জঙ্গিরা। সেই খবর পাওয়া মাত্রই তৎপর হয়েছে ভারতীয় সেনাবাহিনী। চালানো হচ্ছে সাড়াশি তল্লাশি অভিযান। এতেই মিলেছে সাফল্য।

জম্মু ও কাশ্মীর পুলিশের স্পেশাল অপারেশন গ্রুপের (এসওজি) সঙ্গে অভিযান চলিয়ে পাকিস্তান ভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার শাখা রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট কর্তৃক ড্রোন দ্বারা ভারতের অভ্যন্তরে ফেলে দেওয়া অস্ত্র ও গোলাবারুদের একটি বিশাল চালান উদ্ধার করেছে ভারতীয় সেনা। এর মাধ্যমে কাশ্মীরে বড় সন্ত্রাসবাদী হামলার চক্রান্ত ব্যর্থ করা হয়েছে।

২৪ ফেব্রুয়ারী, বৃহস্পতিবার, জম্মু পুলিশ জানিয়েছে, জম্মু জেলার আরএসপুর মহকুমার আর্নিয়া এলাকায় পাকিস্তানের গোয়েন্দা সংস্থা আইএসআই-এর নির্দেশে এই গোলাবারুদ ফেলে যাওয়া হয়েছে। পাকিস্তান ভিত্তিক সন্ত্রাসী সংগঠন লস্কর-ই-তৈয়বার শাখা দ্য রেজিস্ট্যান্স ফ্রন্ট ড্রোনের সাহায্যে অস্ত্র ও গোলাবারুদ ফেলে গিয়েছে ভারতে থাকা সন্ত্রাসবাদীদের সাহায্যার্থে। এমনটা তথ্য পাওয়ার পরেই ময়দানে নামে যৌথ বাহিনী। ব্যপক তল্লাশি অভিযান শুরু করে স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ। অনুসন্ধানের সময়েই আরএসপুর মহকুমার আর্নিয়া এলাকা থেকে উদ্ধার হয় বিপুল অস্ত্র ও বিস্ফোরক পদার্থ।

তল্লাশি অভিযানের সময় আর্নিয়ার ত্রেভা গ্রাম থেকে রাতে ড্রোনের মাধ্যমে ফেলে যাওয়া তিন বাক্স অস্ত্র ও গোলাবারুদ উদ্ধার করা হয়। যার মধ্যে রয়েছে ০৩ টি ডেটোনেটর, ০৩ টি রিমোট-নিয়ন্ত্রিত আইইডি, ০৩ টি বিস্ফোরক বোতল, কর্ডটেক্স তারের ০১ টি বান্ডিল, ০২ টি টাইমার আইইডি, ০১ টি পিস্তল, ০২ টি ম্যাগাজিন, ০৬ টি গ্রেনেড এবং ৭০ রাউন্ড গুলি। বিশেষজ্ঞদের মতে এই অস্ত্র উদ্ধারের ফলে বিরাট নাশকতা এড়ানো গিয়েছে।

প্রসঙ্গত, ভারতের ১০০ থেকে ১৫০ মিটারের মধ্যে ঢুকে পড়ে পাকিস্তানি ড্রোন। রাতের অন্ধকারে ড্রোন দেখতেই হামলা চালায় বিএসএফ। কিন্তু তাতেও নামানো যায়নি ড্রোনটিকে। জানা যায়, তা ফের পাকিস্তান সীমান্তের দিকে উড়ে যায়।

খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক