০৯:১৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

সফলভাবে আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ইসরো’র

চলতি বছরের প্রথম উৎক্ষেপণ করলো ইসরো। গত ১৪ ফেব্রুয়ারী, সোমবার, ভোর ৫টা ৫৯ মিনিটে শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে ইসরোর পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেল পিএসএলভি-সি৫২।

প্রায় ২৫ ঘণ্টার কাউন্টডাউন শেষে এই লঞ্চ ভেহিকেলটি আকাশ পানে উড়াল দেয়। পৃথিবীর কক্ষপথে যাওয়া ভেহিকেলটিতে তিনটি স্যাটেলাইট সংযুক্ত করা হয়েছে, যার প্রথমটি ইওএস-০৪। এর সঙ্গে ছিল আরও দুটি কো-প্যাসেঞ্জার পেলোড (তুলনায় ছোট স্যাটেলাইট), যাদের নাম ‘ইনস্পায়ারস্যাট-১’ অন্যটি, ‘ইনস্যাট-২টিডি’।

জানা গিয়েছে, ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোরে উৎক্ষেপণ হওয়া পিএসএলভি-সি৫২ ভেহিকলটি অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার লঞ্চ থেকে হওয়া ৮০তম উৎক্ষেপণ ছিল। একইসঙ্গে এটি পিএসএলভি-র ৫৪তম উড়ান। এর পাশাপাশি বলা হচ্ছে পিএসএলভি- র এক্সএল কনফিগারেশনে এটি ২৩তম উড়ান।

ইসরোর রিপোর্ট অনুসারে, আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট ইওএস-০৪ আসলে একটি র‍্যাডার ইমেজিং স্যাটেলাইট। এটি ডিজাইন করা হয়েছে সমস্ত ধরনের আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে যাতে ভাল গুণগত মানে ছবি পাওয়া যায় সেই জন্য। মূলত, এই স্যাটেলাইটটি কৃষি, বনায়ন, বৃক্ষরোপণ, মৃত্তিকার আর্দ্রতা, জলবিদ্যা এবং বন্যা ম্যাপিংয়ের মতো অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

উপরোক্ত সমস্ত অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে যেকোনও রকম আবহাওয়ায় যেন ভাল কোয়ালিটির ছবি পাওয়া যায়, সেই জন্যই এই আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট তৈরি করা হয়েছে। এই স্যাটেলাইটের ওজন ১৭১০ কিলোগ্রাম। এটি ২২৮০ ওয়াট শক্তি উৎপাদন করতে পারে এবং ১০ বছর ধরে সক্রিয় অভিযান চালাতে পারবে।

এই আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট ছাড়াও ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে পিএসএলভি-সি৫২ লঞ্চ ভেহিকেল দুটো ছোট স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ করেছে। তাদের মধ্যে একটি হল ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব স্পেস সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির ছাত্রদের তৈরি ‘ইনস্পায়ারস্যাট-১’ স্যাটেলাইট।

আর একটি স্যাটেলাইট হল ইসরো টেকনোলজি ডেমনস্ট্রেটর স্যাটেলাইট, ‘ইনস্যাট-২টিডি’, যা ভারত-ভুটান যৌথ স্যাটেলাইটের অগ্রদূত। জানা গিয়েছে, এই দুই কো-প্যাসেঞ্জার স্যাটেলাইট নিয়ম অনুসারে সফলভাবেই পিএসএলভি লঞ্চ ভেহিকেল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছে। ইসরোর চেয়ারম্যান এস সোমনাথ তাঁর দলকে এই মিশনের সফল সূচনার জন্য অভিবাদন জানিয়েছেন।

ছাত্রছাত্রীদের বানানো ৮ কিলোগ্রাম ওজনের ইনস্পায়ারস্যাট-১ উপগ্রহটি পাঠানো হচ্ছে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের আয়নোস্ফিয়ার কী ভাবে দ্রুত বদলে যাচ্ছে তার উপর গবেষণা চালাতে। আর, ইনস্যাট-২টিডি উপগ্রহটি ভুটান ও ভারতের সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় নতুন কৃষিজমি ও বনাঞ্চলের সন্ধান করবে।

খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

সফলভাবে আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ ইসরো’র

প্রকাশ: ০৫:১২:৪২ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২২

চলতি বছরের প্রথম উৎক্ষেপণ করলো ইসরো। গত ১৪ ফেব্রুয়ারী, সোমবার, ভোর ৫টা ৫৯ মিনিটে শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছে ইসরোর পোলার স্যাটেলাইট লঞ্চ ভেহিকেল পিএসএলভি-সি৫২।

প্রায় ২৫ ঘণ্টার কাউন্টডাউন শেষে এই লঞ্চ ভেহিকেলটি আকাশ পানে উড়াল দেয়। পৃথিবীর কক্ষপথে যাওয়া ভেহিকেলটিতে তিনটি স্যাটেলাইট সংযুক্ত করা হয়েছে, যার প্রথমটি ইওএস-০৪। এর সঙ্গে ছিল আরও দুটি কো-প্যাসেঞ্জার পেলোড (তুলনায় ছোট স্যাটেলাইট), যাদের নাম ‘ইনস্পায়ারস্যাট-১’ অন্যটি, ‘ইনস্যাট-২টিডি’।

জানা গিয়েছে, ১৪ ফেব্রুয়ারি ভোরে উৎক্ষেপণ হওয়া পিএসএলভি-সি৫২ ভেহিকলটি অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটার সতীশ ধাওয়ান স্পেস সেন্টার লঞ্চ থেকে হওয়া ৮০তম উৎক্ষেপণ ছিল। একইসঙ্গে এটি পিএসএলভি-র ৫৪তম উড়ান। এর পাশাপাশি বলা হচ্ছে পিএসএলভি- র এক্সএল কনফিগারেশনে এটি ২৩তম উড়ান।

ইসরোর রিপোর্ট অনুসারে, আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট ইওএস-০৪ আসলে একটি র‍্যাডার ইমেজিং স্যাটেলাইট। এটি ডিজাইন করা হয়েছে সমস্ত ধরনের আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে যাতে ভাল গুণগত মানে ছবি পাওয়া যায় সেই জন্য। মূলত, এই স্যাটেলাইটটি কৃষি, বনায়ন, বৃক্ষরোপণ, মৃত্তিকার আর্দ্রতা, জলবিদ্যা এবং বন্যা ম্যাপিংয়ের মতো অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

উপরোক্ত সমস্ত অ্যাপ্লিকেশনের ক্ষেত্রে যেকোনও রকম আবহাওয়ায় যেন ভাল কোয়ালিটির ছবি পাওয়া যায়, সেই জন্যই এই আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট তৈরি করা হয়েছে। এই স্যাটেলাইটের ওজন ১৭১০ কিলোগ্রাম। এটি ২২৮০ ওয়াট শক্তি উৎপাদন করতে পারে এবং ১০ বছর ধরে সক্রিয় অভিযান চালাতে পারবে।

এই আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট ছাড়াও ১৪ ফেব্রুয়ারি সকালে পিএসএলভি-সি৫২ লঞ্চ ভেহিকেল দুটো ছোট স্যাটেলাইটের উৎক্ষেপণ করেছে। তাদের মধ্যে একটি হল ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব স্পেস সায়েন্স এন্ড টেকনোলজির ছাত্রদের তৈরি ‘ইনস্পায়ারস্যাট-১’ স্যাটেলাইট।

আর একটি স্যাটেলাইট হল ইসরো টেকনোলজি ডেমনস্ট্রেটর স্যাটেলাইট, ‘ইনস্যাট-২টিডি’, যা ভারত-ভুটান যৌথ স্যাটেলাইটের অগ্রদূত। জানা গিয়েছে, এই দুই কো-প্যাসেঞ্জার স্যাটেলাইট নিয়ম অনুসারে সফলভাবেই পিএসএলভি লঞ্চ ভেহিকেল থেকে বিচ্ছিন্ন হয়েছে। ইসরোর চেয়ারম্যান এস সোমনাথ তাঁর দলকে এই মিশনের সফল সূচনার জন্য অভিবাদন জানিয়েছেন।

ছাত্রছাত্রীদের বানানো ৮ কিলোগ্রাম ওজনের ইনস্পায়ারস্যাট-১ উপগ্রহটি পাঠানো হচ্ছে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের আয়নোস্ফিয়ার কী ভাবে দ্রুত বদলে যাচ্ছে তার উপর গবেষণা চালাতে। আর, ইনস্যাট-২টিডি উপগ্রহটি ভুটান ও ভারতের সীমান্ত সংলগ্ন এলাকায় নতুন কৃষিজমি ও বনাঞ্চলের সন্ধান করবে।

খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক