০৫:৩৪ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়: জয়শঙ্কর

করোনা মহামারী চলাকালীন সময়ে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভীষণ দক্ষতার সাথে পরিস্থিতির সামাল দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দপ্তরের মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ২১ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার, সুশাসন দিবস উদযাপনের অষ্টম সংস্করণে সমাপনী বক্তব্য দিতে গিয়ে জয়শঙ্কর বলেন, “প্রথমেই আমরা বিভিন্ন দূতাবাসে নিবেদিত প্রাণ করোনা সেল চালু করি, যা ২৪*৭ সেবা প্রদান করেছে। তাছাড়া, বিদেশী অংশীদারদের সঙ্গেও সমন্বয় ঘটানোর কাজটি আমরা করেছি। সরবরাহ চেইন নিশ্চিত রেখে অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব এগিয়ে নেয়া এবং ভারতীয়দের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়ার মতো বিষয়গুলো আমরা নিশ্চিত করেছি। মন্ত্রণালয় ভীষণ দক্ষতার সঙ্গে সবকিছুর সমন্বয় করেছে।”

এসময়, করোনাকালীন সময়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বন্দে ভারত মিশনের সবচেয়ে বড় লজিস্টিক্যাল মিশন পরিচালনা করেছে বলে মন্তব্য করেন জয়শঙ্কর। তিনি বলেন, “প্রথম এবং দ্বিতীয় উভয় তরঙ্গের সময়েই গোটা বিশ্বজুড়েই মিশন গুলোতে এবং সাধারণ জনগণের নিকট থেকে গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা সামগ্রী সংগ্রহ করার কার্যক্রমটি অত্যন্ত নিপুণভাবে পালন করে পররাষ্ট্র দপ্তর।”

তাছাড়া, ভারতের করোনা ভ্যাকসিন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের জাতীয় বিশেষজ্ঞ গ্রুপ এবং কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের টাস্ক ফোর্সেও পররাষ্ট্র দপ্তরের নেতৃত্ব প্রদানের কথা স্মরণ করিয়ে দেন জয়শঙ্কর। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং রাজ্য সরকার সমূহের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বাঁড়াতে এবং বজায় রাখতে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সবশেষে, ভ্যাকসিন শংসাপত্রের স্বীকৃতি আদায় এবং ভ্রমণ সহজতর করতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অসামান্য সাহসী ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন জয়শঙ্কর। এখনও অবধি একশোর বেশি দেশ ভারতের ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটকে স্বীকৃতি দিয়েছে বলে জানান তিনি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

করোনায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়: জয়শঙ্কর

প্রকাশ: ০৪:২৬:৪৬ অপরাহ্ন, বুধবার, ২২ ডিসেম্বর ২০২১

করোনা মহামারী চলাকালীন সময়ে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভীষণ দক্ষতার সাথে পরিস্থিতির সামাল দিয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন দপ্তরের মন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ২১ ডিসেম্বর, মঙ্গলবার, সুশাসন দিবস উদযাপনের অষ্টম সংস্করণে সমাপনী বক্তব্য দিতে গিয়ে জয়শঙ্কর বলেন, “প্রথমেই আমরা বিভিন্ন দূতাবাসে নিবেদিত প্রাণ করোনা সেল চালু করি, যা ২৪*৭ সেবা প্রদান করেছে। তাছাড়া, বিদেশী অংশীদারদের সঙ্গেও সমন্বয় ঘটানোর কাজটি আমরা করেছি। সরবরাহ চেইন নিশ্চিত রেখে অর্থনৈতিক অংশীদারিত্ব এগিয়ে নেয়া এবং ভারতীয়দের নিরাপদ আশ্রয়ে সরিয়ে নেয়ার মতো বিষয়গুলো আমরা নিশ্চিত করেছি। মন্ত্রণালয় ভীষণ দক্ষতার সঙ্গে সবকিছুর সমন্বয় করেছে।”

এসময়, করোনাকালীন সময়ে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় বন্দে ভারত মিশনের সবচেয়ে বড় লজিস্টিক্যাল মিশন পরিচালনা করেছে বলে মন্তব্য করেন জয়শঙ্কর। তিনি বলেন, “প্রথম এবং দ্বিতীয় উভয় তরঙ্গের সময়েই গোটা বিশ্বজুড়েই মিশন গুলোতে এবং সাধারণ জনগণের নিকট থেকে গুরুত্বপূর্ণ চিকিৎসা সামগ্রী সংগ্রহ করার কার্যক্রমটি অত্যন্ত নিপুণভাবে পালন করে পররাষ্ট্র দপ্তর।”

তাছাড়া, ভারতের করোনা ভ্যাকসিন অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের জাতীয় বিশেষজ্ঞ গ্রুপ এবং কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের টাস্ক ফোর্সেও পররাষ্ট্র দপ্তরের নেতৃত্ব প্রদানের কথা স্মরণ করিয়ে দেন জয়শঙ্কর। পাশাপাশি কেন্দ্রীয় সরকারের বিভিন্ন মন্ত্রণালয় এবং রাজ্য সরকার সমূহের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বাঁড়াতে এবং বজায় রাখতে ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সবশেষে, ভ্যাকসিন শংসাপত্রের স্বীকৃতি আদায় এবং ভ্রমণ সহজতর করতে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অসামান্য সাহসী ভূমিকার কথা উল্লেখ করেন জয়শঙ্কর। এখনও অবধি একশোর বেশি দেশ ভারতের ভ্যাকসিন সার্টিফিকেটকে স্বীকৃতি দিয়েছে বলে জানান তিনি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক