১০:২৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

জলবায়ু রক্ষায় জাতিসংঘের প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভারতের ভোট

গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত কোপ-২৬ সম্মেলনের চুক্তিসমূহকে দূর্বল করার অভিযোগে জলবায়ু নিরাপত্তা ও ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা পরিষদের আনা নতুন এক প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে ভারত। এর আগেও খসড়া প্রস্তাবটির বিরোধীতা করেছিলো ভারত ও রাশিয়া।

গত ১৩ ডিসেম্বর, সোমবার, জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টি এস তিরুমূর্তি বলেন, “জলবায়ু কর্মকান্ড এবং জলবায়ু নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতিতে ভারত কারও চেয়ে পিছিয়ে নেই। তবে নিরাপত্তা পরিষদ এসব বিষয়ে আলোচনা করার জায়গা নয়। প্রকৃতপক্ষে, এটি করার প্রচেষ্টাটি উপযুক্ত ফোরামে দায়িত্ব এড়ানোর ইচ্ছা মনে হয়।”

তিরুমূর্তি আরও বলেন, “আজকের নিরাপত্তা পরিষদের রেজোলিউশন গ্লাসগোতে ঐকমত্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত চুক্তিসমূহকে দূর্বল করার প্রয়াস মাত্র। এই রেজোলিউশনটি বৃহত্তর পরিসরে জাতিসংঘের সদস্যদের মধ্যে বিরোধের বীজ বপন করবে। তাই আমরা এই প্রস্তাবের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছি।”

উল্লেখ্য, প্রস্তাবটিতে জীবাশ্ম ব্যবহারকে পর্যায়ক্রমে কমিয়ে আনার পরিবর্তে পর্যায়ক্রমে শেষ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু বিশ্বের অনুন্নত এবং উন্নয়নশীল রাষ্ট্রসমূহের কথা বিবেচনায় নিয়ে বিরোধিতা করে ভারত ও রাশিয়া। চীন আলোচনায় অংশ নেয়া থেকে বিরত থাকে।

আয়ারল্যান্ড এবং নাইজেরিয়া কর্তৃক উত্থাপিত নতুন প্রস্তাবটি বিশ্বব্যাপী শান্তি ও সংঘাতের উপর থেকে নিরাপত্তা পরিষদের মনযোগ হঠানোর চেষ্টার নামান্তর হিসেবে আখ্যা দিয়েছে ভারত।

প্রসঙ্গত, প্রায় ২০০ টি রাষ্ট্রের আলোচকবৃন্দের সমন্বয়ে গত মাসে অনুষ্ঠিত হয় কোপ-২৬ শীর্ষ সম্মেলন। সেখানে নতুন একটি জলবায়ু চুক্তিতে পৌঁছান বিশ্ব নেতৃত্ব।

তিরুমূর্তি বলেন, “ভারত বিশ্বাস করে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত সমস্ত বিষয়ে আলোচনার জন্য উপযুক্ত জাতিসংঘের ফোরাম হল ১৯০ সদস্য বিশিষ্ট জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত জাতিসংঘের ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন (ইউএনএফসিসিসি)। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

জলবায়ু রক্ষায় জাতিসংঘের প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভারতের ভোট

প্রকাশ: ০১:০৭:৫৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০২১

গ্লাসগোতে অনুষ্ঠিত কোপ-২৬ সম্মেলনের চুক্তিসমূহকে দূর্বল করার অভিযোগে জলবায়ু নিরাপত্তা ও ব্যবস্থাপনায় নিরাপত্তা পরিষদের আনা নতুন এক প্রস্তাবের বিরুদ্ধে ভোট দিয়েছে ভারত। এর আগেও খসড়া প্রস্তাবটির বিরোধীতা করেছিলো ভারত ও রাশিয়া।

গত ১৩ ডিসেম্বর, সোমবার, জাতিসংঘে ভারতের স্থায়ী প্রতিনিধি টি এস তিরুমূর্তি বলেন, “জলবায়ু কর্মকান্ড এবং জলবায়ু নিরাপত্তার প্রতিশ্রুতিতে ভারত কারও চেয়ে পিছিয়ে নেই। তবে নিরাপত্তা পরিষদ এসব বিষয়ে আলোচনা করার জায়গা নয়। প্রকৃতপক্ষে, এটি করার প্রচেষ্টাটি উপযুক্ত ফোরামে দায়িত্ব এড়ানোর ইচ্ছা মনে হয়।”

তিরুমূর্তি আরও বলেন, “আজকের নিরাপত্তা পরিষদের রেজোলিউশন গ্লাসগোতে ঐকমত্যের ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত চুক্তিসমূহকে দূর্বল করার প্রয়াস মাত্র। এই রেজোলিউশনটি বৃহত্তর পরিসরে জাতিসংঘের সদস্যদের মধ্যে বিরোধের বীজ বপন করবে। তাই আমরা এই প্রস্তাবের বিপক্ষে দাঁড়িয়েছি।”

উল্লেখ্য, প্রস্তাবটিতে জীবাশ্ম ব্যবহারকে পর্যায়ক্রমে কমিয়ে আনার পরিবর্তে পর্যায়ক্রমে শেষ করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে। কিন্তু বিশ্বের অনুন্নত এবং উন্নয়নশীল রাষ্ট্রসমূহের কথা বিবেচনায় নিয়ে বিরোধিতা করে ভারত ও রাশিয়া। চীন আলোচনায় অংশ নেয়া থেকে বিরত থাকে।

আয়ারল্যান্ড এবং নাইজেরিয়া কর্তৃক উত্থাপিত নতুন প্রস্তাবটি বিশ্বব্যাপী শান্তি ও সংঘাতের উপর থেকে নিরাপত্তা পরিষদের মনযোগ হঠানোর চেষ্টার নামান্তর হিসেবে আখ্যা দিয়েছে ভারত।

প্রসঙ্গত, প্রায় ২০০ টি রাষ্ট্রের আলোচকবৃন্দের সমন্বয়ে গত মাসে অনুষ্ঠিত হয় কোপ-২৬ শীর্ষ সম্মেলন। সেখানে নতুন একটি জলবায়ু চুক্তিতে পৌঁছান বিশ্ব নেতৃত্ব।

তিরুমূর্তি বলেন, “ভারত বিশ্বাস করে জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত সমস্ত বিষয়ে আলোচনার জন্য উপযুক্ত জাতিসংঘের ফোরাম হল ১৯০ সদস্য বিশিষ্ট জলবায়ু পরিবর্তন সংক্রান্ত জাতিসংঘের ফ্রেমওয়ার্ক কনভেনশন (ইউএনএফসিসিসি)। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক