০৯:৪৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

তাজিক ও উজবেক এনএসএ-দের সঙ্গে অজিত দোভালের সাক্ষাৎ

আফগান ইস্যুতে আগামী ১০ নভেম্বর দিল্লীতে অনুষ্ঠিতব্য উচ্চ স্তরের আঞ্চলিক নিরাপত্তা সংলাপের পূর্বে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন তাজিকিস্তান ও উজবেকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাগণ। ০৯ নভেম্বর, মঙ্গলবার, নয়াদিল্লীতে আলোচনায় মিলিত হোন তাঁরা।

সূত্র জানিয়েছে, প্রথমে তাজিকিস্তানের নিরাপত্তা পরিষদের সচিব নাসরুল্লো রহমতজন মাহমুদজোদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন দোভাল। এরপর উজবেকিস্তানের নিরাপত্তা পরিষদের সচিব ভিক্টর মাখমুদভের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হোন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।

উল্লেখ্য, তালেবান ক্ষমতা দখলের পর সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদ ঠেকাতে আফগান ইস্যুতে উচ্চ স্তরের আঞ্চলিক নিরাপত্তা সংলাপ আয়োজন করতে চলেছে ভারত। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ে অনুষ্ঠিতব্য এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল।

ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, এর আগে সর্বশেষ ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ইরানে আফগান ইস্যুতে নিরাপত্তা সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। গতবছর করোনার কারণে সংলাপটি বাতিল হয়ে যায়।

জানা গিয়েছে, চীন এবং পাকিস্তানকেও সংলাপে অংশ নেয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিলো। এছাড়াও, ইরান, কাজাখস্তান, কিরগিজ প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তান নিজেদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে বার্তা দিয়েছে।

তালেবান ক্ষমতা দখলের পর আফগান ইস্যুতে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য এই বৈঠকটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে পাকিস্তান এবং চীন সংলাপটিতে অংশগ্রহণ করবেনা বলে ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে।

পাকিস্তানের অংশগ্রহণ না করার বিষয়টিকে দুর্ভাগ্যজনক হিসেবে আখ্যা দিয়েছে ভারতীয় বোদ্ধামহল। তবে বিষয়টি যে আফগানিস্তানে তালেবান শাসনকে বৈধতা দেয়ার প্রচেষ্টা, সে বিষয়ে ঐক্যমত্য প্রকাশ করেছে নিরাপত্তা বিশ্লেষকগণ।

তবে, অংশগ্রহণ করতে চলা সকল রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। আঞ্চলিক নিরাপত্তায় সংলাপটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে সংশ্লিষ্ট মহল।

প্রসঙ্গত, ঐতিহ্যগতভাবে আফগানিস্তানের সঙ্গে ভারতের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বিদ্যমান। তাই আফগানিস্তানের সকল মানবিক ও সামাজিক বিপর্যয় রুখতে শুরু থেকেই সচেষ্ট ভূমিকা পালন করছে ভারত।

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

তাজিক ও উজবেক এনএসএ-দের সঙ্গে অজিত দোভালের সাক্ষাৎ

প্রকাশ: ০৪:১৫:২৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ৯ নভেম্বর ২০২১

আফগান ইস্যুতে আগামী ১০ নভেম্বর দিল্লীতে অনুষ্ঠিতব্য উচ্চ স্তরের আঞ্চলিক নিরাপত্তা সংলাপের পূর্বে ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন তাজিকিস্তান ও উজবেকিস্তানের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টাগণ। ০৯ নভেম্বর, মঙ্গলবার, নয়াদিল্লীতে আলোচনায় মিলিত হোন তাঁরা।

সূত্র জানিয়েছে, প্রথমে তাজিকিস্তানের নিরাপত্তা পরিষদের সচিব নাসরুল্লো রহমতজন মাহমুদজোদার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন দোভাল। এরপর উজবেকিস্তানের নিরাপত্তা পরিষদের সচিব ভিক্টর মাখমুদভের সাথে দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে মিলিত হোন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা।

উল্লেখ্য, তালেবান ক্ষমতা দখলের পর সন্ত্রাসবাদ ও মৌলবাদ ঠেকাতে আফগান ইস্যুতে উচ্চ স্তরের আঞ্চলিক নিরাপত্তা সংলাপ আয়োজন করতে চলেছে ভারত। জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা পর্যায়ে অনুষ্ঠিতব্য এই বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন ভারতের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভাল।

ভারতীয় পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র জানিয়েছে, এর আগে সর্বশেষ ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে ইরানে আফগান ইস্যুতে নিরাপত্তা সংলাপ অনুষ্ঠিত হয়েছিলো। গতবছর করোনার কারণে সংলাপটি বাতিল হয়ে যায়।

জানা গিয়েছে, চীন এবং পাকিস্তানকেও সংলাপে অংশ নেয়ার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিলো। এছাড়াও, ইরান, কাজাখস্তান, কিরগিজ প্রজাতন্ত্র, রাশিয়া, তাজিকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান এবং উজবেকিস্তান নিজেদের অংশগ্রহণ নিশ্চিত করে বার্তা দিয়েছে।

তালেবান ক্ষমতা দখলের পর আফগান ইস্যুতে ভারতের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য এই বৈঠকটি বেশ তাৎপর্যপূর্ণ বলে ধারণা করা হচ্ছে। তবে পাকিস্তান এবং চীন সংলাপটিতে অংশগ্রহণ করবেনা বলে ইতোমধ্যে জানিয়ে দিয়েছে।

পাকিস্তানের অংশগ্রহণ না করার বিষয়টিকে দুর্ভাগ্যজনক হিসেবে আখ্যা দিয়েছে ভারতীয় বোদ্ধামহল। তবে বিষয়টি যে আফগানিস্তানে তালেবান শাসনকে বৈধতা দেয়ার প্রচেষ্টা, সে বিষয়ে ঐক্যমত্য প্রকাশ করেছে নিরাপত্তা বিশ্লেষকগণ।

তবে, অংশগ্রহণ করতে চলা সকল রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের অভিনন্দন এবং শুভেচ্ছা জানিয়েছে ভারতীয় কর্তৃপক্ষ। আঞ্চলিক নিরাপত্তায় সংলাপটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেছে সংশ্লিষ্ট মহল।

প্রসঙ্গত, ঐতিহ্যগতভাবে আফগানিস্তানের সঙ্গে ভারতের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বিদ্যমান। তাই আফগানিস্তানের সকল মানবিক ও সামাজিক বিপর্যয় রুখতে শুরু থেকেই সচেষ্ট ভূমিকা পালন করছে ভারত।

তথ্যসূত্র: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক