০৯:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শেরপুরে বেওয়ারিশ কুকুরদের খাবার বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা ভাইরাসের কারণে উদ্ভুত সংকটকালীন পরিস্থিতিতে শুধু মানুষ নয়, অনাহারে,-কষ্টে দিনযাপন করছে পৃথিবীর অসংখ্য প্রাণী। আমাদের দেশের শহর-মফস্বল গুলোতে ঘুরে বেড়ানো প্রাণীরাও এর ব্যতিক্রম নয়। সম্প্রতি শেরপুর জেলার কতিপয় উদ্যমী তরুণ (দীপ দাস, নাজমুল হক, তপু চক্রবর্তী, সৌরভ, মানিক সহ প্রমুখ) গত বুধবার (০৬ মে, ২০২০) সন্ধ্যায়, শহরের রাস্তায় অনাহারে ঘুরে বেড়ানো বেওয়ারিশ কুকুরের মুখে খাবার তুলে দেন।

উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,

” বাসাবাড়ির পাশাপাশি শহরের খাবারের হোটেলসহ বিভিন্ন খাদ্য পণ্যর দোকানের পচা, বাসি, উচ্ছিষ্ট ও অতিরিক্ত খাবার বেওয়ারিশ কুকুরসহ বিভিন্ন পশুর খাবারের প্রধান উৎস। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে শহরের অধিকাংশ হোটেলসহ খাদ্য দ্রব্যর দোকান বন্ধ রয়েছে। খাদ্য সংকটের আশঙ্কায় বাসাবাড়িগুলোতেও পরিমিত পরিমাণে রান্নাবান্না হচ্ছে। এতে কুকুরসহ ভ্রাম্যমান বেওয়ারিশ প্রাণীরা খাদ্য সংকটে পড়েছে। আর তাই আমাদের ক্ষুদ্র এই উদ্যোগ!”

শহরের বিত্তবানেরা তাঁদের এই কাজে উৎসাহিত হয়ে প্রাণীগুলোর পাশে এসে দাড়াবেন বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তাঁরা।

ট্যাগ:

শেরপুরে বেওয়ারিশ কুকুরদের খাবার বিতরণ

প্রকাশ: ১০:১৭:০০ অপরাহ্ন, বুধবার, ৬ মে ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা ভাইরাসের কারণে উদ্ভুত সংকটকালীন পরিস্থিতিতে শুধু মানুষ নয়, অনাহারে,-কষ্টে দিনযাপন করছে পৃথিবীর অসংখ্য প্রাণী। আমাদের দেশের শহর-মফস্বল গুলোতে ঘুরে বেড়ানো প্রাণীরাও এর ব্যতিক্রম নয়। সম্প্রতি শেরপুর জেলার কতিপয় উদ্যমী তরুণ (দীপ দাস, নাজমুল হক, তপু চক্রবর্তী, সৌরভ, মানিক সহ প্রমুখ) গত বুধবার (০৬ মে, ২০২০) সন্ধ্যায়, শহরের রাস্তায় অনাহারে ঘুরে বেড়ানো বেওয়ারিশ কুকুরের মুখে খাবার তুলে দেন।

উদ্যোক্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়,

” বাসাবাড়ির পাশাপাশি শহরের খাবারের হোটেলসহ বিভিন্ন খাদ্য পণ্যর দোকানের পচা, বাসি, উচ্ছিষ্ট ও অতিরিক্ত খাবার বেওয়ারিশ কুকুরসহ বিভিন্ন পশুর খাবারের প্রধান উৎস। কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারণে শহরের অধিকাংশ হোটেলসহ খাদ্য দ্রব্যর দোকান বন্ধ রয়েছে। খাদ্য সংকটের আশঙ্কায় বাসাবাড়িগুলোতেও পরিমিত পরিমাণে রান্নাবান্না হচ্ছে। এতে কুকুরসহ ভ্রাম্যমান বেওয়ারিশ প্রাণীরা খাদ্য সংকটে পড়েছে। আর তাই আমাদের ক্ষুদ্র এই উদ্যোগ!”

শহরের বিত্তবানেরা তাঁদের এই কাজে উৎসাহিত হয়ে প্রাণীগুলোর পাশে এসে দাড়াবেন বলে আশাবাদ ব্যাক্ত করেন তাঁরা।