০২:৩৭ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

তানজানিয়ায় দৃঢ় আর্থিক বন্ধন চায় ভারত

বড় মিশনে নামলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর, আর তাতেই চীনে তুমুল হইচই। হাহুতাশ করছে পাকিস্তান। ভারত মহাসাগরে এবার ঝড় তুলবে দিল্লি। চীনের হাত থেকে বেরিয়ে যাবে গোটা একটা দেশ। চুপচাপ একটা মিশন নিয়েই বহুদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছ বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর। এবার একটু একটু করে পরিস্কার হচ্ছে আসল খেলা। আফ্রিকার তানজানিয়ায় জয়শঙ্করের সফর কেন উড়িয়েছে জিনপিংয়ের ঘুম? খবর সেখানে বিদেশের মাটিতে প্রথম ভারতের আইআইটি ক্যাম্পাস খোলার ঘোষণা করেছে কেন্দ্র।

কিন্তু না আসল খবর এটা নয়৷ লালফৌজের হেডকোর্য়াটারে টেনশন বাড়ছে। কারণ ভারত মহাসাগরে বড় তুফান তুলবে ভারত। কারণ ক্রমশ উন্নতির পথে হাঁটা আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ায়। এবার এমন কিছু করতে চলছেন জয়শঙ্কর যা উল্টে দেবে চীনের সাজানো খেলা ভারত মহাসাগর লাগোয়া তানজানিয়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছে ভারতের আইএনএস ত্রিশূল। বিশ্ব আফ্রিকার এ দেশে জয়শঙ্কর ও ভারতের আইএনএস ত্রিশূলকে একসঙ্গে দেখে হতবাক। ভারত কি তানজানিয়া থেকেই তাক করছে লালফৌজের দেশকে?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আসল ফ্যাক্টই হল আফ্রিকার জিবুতি। সেখানে চীনের সেনা বেঁধেছে ঘাঁটি। তানজানিয়া থেকে আড়াই হাজার কিমি দূরেই রয়েছে আফ্রিকার জিবুতি। আর সেই জিবুতিতে মোতায়েন থাকা চিনের সেনাকে প্রতিমূহুর্তে চোখ রাঙাচ্ছে তানজানিয়ায় দৈত্যের মতো দাঁড়িয়ে থাকা ভারতের আইএনএস ত্রিশূল। শুধু এই একটা কারণ নয়৷ তানজানিয়া ভারতের কাছে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটা বিশেষ কারণে৷

হতাশ দেশ থেকে আফ্রিকা এখন আশা দেখাচ্ছে বিশ্বের বড় বড় শক্তিগুলোকে। প্রথমত চীন আগে থেকেই আফ্রিকার ওপর তাদের জাল বিছিয়ে রেখেছে। আফ্রিকার ৫৪ দেশের মধ্যে ৪২ দেশের মধ্যে বিআরআই প্রজেক্ট চলছে। ভারতকে ঘেরার জন্য ব্লু ইকোনমিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক তৈরি করতে চায় বেজিং। ২০২২ শেষের দিকে এজন্য ১৯ টা দেশকে জড়ো করেছিল চীন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভাবে ছিল তানজানিয়াও। সেই প্রভাবই একটু একটু করে মুছতে চলেছে দিল্লি। দায়িত্ব কাঁধে তুলেছেন এস জয়শঙ্কর৷ কূটনীতির খেলাতে হবে বাজিমাত।

এর মাঝে আরেকটা খবর জেনে নিন। ভারতীয় বায়ুসেনার ব্যাকবোন সুখোই ও মিগ সিরিজের ফাইটার জেট। এগুলোর আপগ্রেড, মেরামতি ও ঠিক করতে এবার আর রাশিয়া দরকার নেই। কারণ পুতিন ও মোদী নয়া ডিল বলছে এবার ভারতের নাসিকেই হবে সুখোই ও মিগ সিরিজের ফাইটার জেটের আপগ্রেড, মেরামতি, ওভারহল সব কাজ। ভারতের প্রতিবেশী দেশের যাদের কাছে রয়েছে রুশ বিমান তারাও নিতে পারবে এই সুবিধা।

এক দশক আগেই বিশ্ব জানতে পেরেছে, তানজানিয়া সংলগ্ন সমুদ্রে প্রাকৃতিক গ্যাসের বড় খাজানা রয়েছে। সেখানেই এবার ভারতের বড় বিনিয়োগ হতে পারে। ভুললে চলবে না তানজানিয়ার তেল কোম্পানিগুলোকে নিজের পায়ে দাঁড় করানোর জন্য ভারতের মদত ছিল। জয়শঙ্করের মিশন আফ্রিকার অংশ শুধু তানজানিয়া নয়। উগান্ডা, সাউথ আফ্রিকা, মোজাম্বিকও সফর করেছে বিদেশমন্ত্রী। এবার দেখার চীনের নজরে থাকা তানজানিয়াকে কীভাবে নিজেদের ফেভারে নেয় ভারতবর্ষ। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

তানজানিয়ায় দৃঢ় আর্থিক বন্ধন চায় ভারত

প্রকাশ: ০৮:০৭:২৬ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ৮ জুলাই ২০২৩

বড় মিশনে নামলেন ভারতের বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর, আর তাতেই চীনে তুমুল হইচই। হাহুতাশ করছে পাকিস্তান। ভারত মহাসাগরে এবার ঝড় তুলবে দিল্লি। চীনের হাত থেকে বেরিয়ে যাবে গোটা একটা দেশ। চুপচাপ একটা মিশন নিয়েই বহুদিন ধরে কাজ করে যাচ্ছ বিদেশমন্ত্রী জয়শঙ্কর। এবার একটু একটু করে পরিস্কার হচ্ছে আসল খেলা। আফ্রিকার তানজানিয়ায় জয়শঙ্করের সফর কেন উড়িয়েছে জিনপিংয়ের ঘুম? খবর সেখানে বিদেশের মাটিতে প্রথম ভারতের আইআইটি ক্যাম্পাস খোলার ঘোষণা করেছে কেন্দ্র।

কিন্তু না আসল খবর এটা নয়৷ লালফৌজের হেডকোর্য়াটারে টেনশন বাড়ছে। কারণ ভারত মহাসাগরে বড় তুফান তুলবে ভারত। কারণ ক্রমশ উন্নতির পথে হাঁটা আফ্রিকার দেশ তানজানিয়ায়। এবার এমন কিছু করতে চলছেন জয়শঙ্কর যা উল্টে দেবে চীনের সাজানো খেলা ভারত মহাসাগর লাগোয়া তানজানিয়ায় দাঁড়িয়ে রয়েছে ভারতের আইএনএস ত্রিশূল। বিশ্ব আফ্রিকার এ দেশে জয়শঙ্কর ও ভারতের আইএনএস ত্রিশূলকে একসঙ্গে দেখে হতবাক। ভারত কি তানজানিয়া থেকেই তাক করছে লালফৌজের দেশকে?

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, আসল ফ্যাক্টই হল আফ্রিকার জিবুতি। সেখানে চীনের সেনা বেঁধেছে ঘাঁটি। তানজানিয়া থেকে আড়াই হাজার কিমি দূরেই রয়েছে আফ্রিকার জিবুতি। আর সেই জিবুতিতে মোতায়েন থাকা চিনের সেনাকে প্রতিমূহুর্তে চোখ রাঙাচ্ছে তানজানিয়ায় দৈত্যের মতো দাঁড়িয়ে থাকা ভারতের আইএনএস ত্রিশূল। শুধু এই একটা কারণ নয়৷ তানজানিয়া ভারতের কাছে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটা বিশেষ কারণে৷

হতাশ দেশ থেকে আফ্রিকা এখন আশা দেখাচ্ছে বিশ্বের বড় বড় শক্তিগুলোকে। প্রথমত চীন আগে থেকেই আফ্রিকার ওপর তাদের জাল বিছিয়ে রেখেছে। আফ্রিকার ৫৪ দেশের মধ্যে ৪২ দেশের মধ্যে বিআরআই প্রজেক্ট চলছে। ভারতকে ঘেরার জন্য ব্লু ইকোনমিক থিঙ্ক ট্যাঙ্ক তৈরি করতে চায় বেজিং। ২০২২ শেষের দিকে এজন্য ১৯ টা দেশকে জড়ো করেছিল চীন। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য ভাবে ছিল তানজানিয়াও। সেই প্রভাবই একটু একটু করে মুছতে চলেছে দিল্লি। দায়িত্ব কাঁধে তুলেছেন এস জয়শঙ্কর৷ কূটনীতির খেলাতে হবে বাজিমাত।

এর মাঝে আরেকটা খবর জেনে নিন। ভারতীয় বায়ুসেনার ব্যাকবোন সুখোই ও মিগ সিরিজের ফাইটার জেট। এগুলোর আপগ্রেড, মেরামতি ও ঠিক করতে এবার আর রাশিয়া দরকার নেই। কারণ পুতিন ও মোদী নয়া ডিল বলছে এবার ভারতের নাসিকেই হবে সুখোই ও মিগ সিরিজের ফাইটার জেটের আপগ্রেড, মেরামতি, ওভারহল সব কাজ। ভারতের প্রতিবেশী দেশের যাদের কাছে রয়েছে রুশ বিমান তারাও নিতে পারবে এই সুবিধা।

এক দশক আগেই বিশ্ব জানতে পেরেছে, তানজানিয়া সংলগ্ন সমুদ্রে প্রাকৃতিক গ্যাসের বড় খাজানা রয়েছে। সেখানেই এবার ভারতের বড় বিনিয়োগ হতে পারে। ভুললে চলবে না তানজানিয়ার তেল কোম্পানিগুলোকে নিজের পায়ে দাঁড় করানোর জন্য ভারতের মদত ছিল। জয়শঙ্করের মিশন আফ্রিকার অংশ শুধু তানজানিয়া নয়। উগান্ডা, সাউথ আফ্রিকা, মোজাম্বিকও সফর করেছে বিদেশমন্ত্রী। এবার দেখার চীনের নজরে থাকা তানজানিয়াকে কীভাবে নিজেদের ফেভারে নেয় ভারতবর্ষ। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক