০২:৩০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

প্রথম বিশ্ব বৌদ্ধ সম্মেলনে ভাষণ দেবেন মোদী

ভারতের কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি, পর্যটন এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রী শ্রী জি কিষাণ রেড্ডি নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিতব্য প্রথম আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ শীর্ষ সম্মেলন সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানিয়েছেন। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রক আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশনের সঙ্গে যৌথভাবে দিল্লির অশোক হোটেলে দু’দিনব্যাপী এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২০ এপ্রিল সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ উদযাপনের অঙ্গ হিসেবে কেন্দ্র যে একগুচ্ছ কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারই অঙ্গ হিসেবে এই উদ্যোগ।

শ্রী রেড্ডি জানান, বিভিন্ন দেশের বৌদ্ধ সন্ন্যাসীরা সম্মেলনে যোগ দিতে ভারতে আসবেন। বৌদ্ধ দর্শন ও ভাবনার সাহায্যে কিভাবে সমসাময়িক বিভিন্ন সমস্যার আলোচনা করা যায়, সম্মেলনে তা নিয়ে বিশদে আলোচনা হবে। বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তন হয়েছে ভারতে। তাই, ভারতে বৌদ্ধ ধর্মের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে প্রতিফলিত হবে।

আন্তর্জাতিক এই শীর্ষ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে ভারতের সাংস্কৃতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে। মন্ত্রী জানান, ৩০টি দেশের ১৭১ জন প্রতিনিধি এবং ভারতের বিভিন্ন বৌদ্ধ সংগঠনের ১৫০ জন সম্মেলনে যোগ দেবেন।

‘সমসাময়িক বিভিন্ন সমস্যার মোকাবিলার জন্য উদ্যোগী হওয়া: দর্শন থেকে অভ্যাসে রূপান্তর ঘটানো’ শীর্ষক শীর্ষ সম্মেলনে ৮৪ জন বিদেশি সঙ্ঘের প্রতিনিধিরা ছাড়াও ৪৬ জন ভারতীয় সঙ্ঘের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। জাতীয় রাজধানী অঞ্চলের ২০০ জনের মতো প্রতিনিধিও এই সম্মেলনে যোগ দেবেন। এঁদের মধ্যে ৩০টির বেশি দেশের রাষ্ট্রদূতরা রয়েছেন। সম্মেলনে যে বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা হবে সেগুলি হল –

(১) বৌদ্ধ ধর্ম ও শান্তি; (২) বৌদ্ধ ধর্ম : পরিবেশের সঙ্কট, স্বাস্থ্য ও সুস্থায়ী ব্যবস্থাপনা; (৩) নালন্দায় বৌদ্ধ সংস্কৃতিকে রক্ষা করা; এবং (৪) বৌদ্ধ ধর্মস্থানগুলি দর্শনের জন্য তীর্থযাত্রা, বর্তমানে সুরক্ষিত বৌদ্ধ ধর্মের বিভিন্ন ঐতিহ্য ও প্রাচীন সম্পদ : দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব এবং পূর্ব এশীয় দেশগুলির সঙ্গে ভারতের শতাব্দী প্রাচীন সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনের দৃঢ় ভিত্তি।

সম্মেলনে ভিয়েতনামের বৌদ্ধ সঙ্ঘের প্রধান প্রচারক শ্রী থিশ ত্রি কোয়াং এবং অধ্যাপক রবার্ট থুরম্যন বক্তব্য রাখবেন। এই সম্মেলনের অন্যতম উদ্দেশ্য শাক্যমুণি বুদ্ধের বিভিন্ন শিক্ষাদান যা যুগ যুগ ধরে বৌদ্ধ ধর্মাচরণের মধ্য দিয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলিকে সমৃদ্ধ করেছে। আন্তর্জাতিক শান্তি ও সম্প্রীতির লক্ষ্যে ভগবান বুদ্ধের শান্তি, করুণা ও সমৃদ্ধির বাণী নিয়ে চর্চা সম্মেলনের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। এর মধ্য দিয়ে ভবিষ্যতে বিভিন্ন শিক্ষামূলক গবেষণা এবং আন্তর্জাতিক স্তরে সম্পর্ক গঠনের ক্ষেত্রে সেগুলিকে কাজে লাগানোর পন্থা-পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা হবে।

কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রক সম্প্রতি নতুন দিল্লিতে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশনের সঙ্গে যৌথভাবে সাংহাই সহযোগিতা সংগঠনের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি সম্মেলনের আয়োজন করে। এই সম্মেলনে বিভিন্ন রাষ্ট্রের মধ্যে সাংস্কৃতিক যোগসূত্রকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে বৌদ্ধ ঐতিহ্যকে কিভাবে কাজে লাগানো যায় তা নিয়ে মতবিনিময় করা হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

প্রথম বিশ্ব বৌদ্ধ সম্মেলনে ভাষণ দেবেন মোদী

প্রকাশ: ০৭:৩৫:২১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ এপ্রিল ২০২৩

ভারতের কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি, পর্যটন এবং উত্তর-পূর্বাঞ্চল উন্নয়ন মন্ত্রী শ্রী জি কিষাণ রেড্ডি নয়াদিল্লিতে অনুষ্ঠিতব্য প্রথম আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ শীর্ষ সম্মেলন সম্পর্কে বিস্তারিতভাবে জানিয়েছেন। কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রক আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশনের সঙ্গে যৌথভাবে দিল্লির অশোক হোটেলে দু’দিনব্যাপী এই সম্মেলনের আয়োজন করেছে। প্রধানমন্ত্রী শ্রী নরেন্দ্র মোদী ২০ এপ্রিল সম্মেলনের উদ্বোধন করবেন। ‘আজাদি কা অমৃত মহোৎসব’ উদযাপনের অঙ্গ হিসেবে কেন্দ্র যে একগুচ্ছ কর্মসূচি পালনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারই অঙ্গ হিসেবে এই উদ্যোগ।

শ্রী রেড্ডি জানান, বিভিন্ন দেশের বৌদ্ধ সন্ন্যাসীরা সম্মেলনে যোগ দিতে ভারতে আসবেন। বৌদ্ধ দর্শন ও ভাবনার সাহায্যে কিভাবে সমসাময়িক বিভিন্ন সমস্যার আলোচনা করা যায়, সম্মেলনে তা নিয়ে বিশদে আলোচনা হবে। বৌদ্ধ ধর্মের প্রবর্তন হয়েছে ভারতে। তাই, ভারতে বৌদ্ধ ধর্মের গুরুত্ব এবং তাৎপর্য এই সম্মেলনের মধ্য দিয়ে প্রতিফলিত হবে।

আন্তর্জাতিক এই শীর্ষ সম্মেলনের মধ্য দিয়ে বিভিন্ন দেশের সঙ্গে ভারতের সাংস্কৃতিক ও কূটনৈতিক সম্পর্কের উন্নতি ঘটবে। মন্ত্রী জানান, ৩০টি দেশের ১৭১ জন প্রতিনিধি এবং ভারতের বিভিন্ন বৌদ্ধ সংগঠনের ১৫০ জন সম্মেলনে যোগ দেবেন।

‘সমসাময়িক বিভিন্ন সমস্যার মোকাবিলার জন্য উদ্যোগী হওয়া: দর্শন থেকে অভ্যাসে রূপান্তর ঘটানো’ শীর্ষক শীর্ষ সম্মেলনে ৮৪ জন বিদেশি সঙ্ঘের প্রতিনিধিরা ছাড়াও ৪৬ জন ভারতীয় সঙ্ঘের প্রতিনিধিরা উপস্থিত থাকবেন। জাতীয় রাজধানী অঞ্চলের ২০০ জনের মতো প্রতিনিধিও এই সম্মেলনে যোগ দেবেন। এঁদের মধ্যে ৩০টির বেশি দেশের রাষ্ট্রদূতরা রয়েছেন। সম্মেলনে যে বিষয়গুলি নিয়ে আলোচনা হবে সেগুলি হল –

(১) বৌদ্ধ ধর্ম ও শান্তি; (২) বৌদ্ধ ধর্ম : পরিবেশের সঙ্কট, স্বাস্থ্য ও সুস্থায়ী ব্যবস্থাপনা; (৩) নালন্দায় বৌদ্ধ সংস্কৃতিকে রক্ষা করা; এবং (৪) বৌদ্ধ ধর্মস্থানগুলি দর্শনের জন্য তীর্থযাত্রা, বর্তমানে সুরক্ষিত বৌদ্ধ ধর্মের বিভিন্ন ঐতিহ্য ও প্রাচীন সম্পদ : দক্ষিণ, দক্ষিণ-পূর্ব এবং পূর্ব এশীয় দেশগুলির সঙ্গে ভারতের শতাব্দী প্রাচীন সাংস্কৃতিক মেলবন্ধনের দৃঢ় ভিত্তি।

সম্মেলনে ভিয়েতনামের বৌদ্ধ সঙ্ঘের প্রধান প্রচারক শ্রী থিশ ত্রি কোয়াং এবং অধ্যাপক রবার্ট থুরম্যন বক্তব্য রাখবেন। এই সম্মেলনের অন্যতম উদ্দেশ্য শাক্যমুণি বুদ্ধের বিভিন্ন শিক্ষাদান যা যুগ যুগ ধরে বৌদ্ধ ধর্মাচরণের মধ্য দিয়ে সংশ্লিষ্ট দেশগুলিকে সমৃদ্ধ করেছে। আন্তর্জাতিক শান্তি ও সম্প্রীতির লক্ষ্যে ভগবান বুদ্ধের শান্তি, করুণা ও সমৃদ্ধির বাণী নিয়ে চর্চা সম্মেলনের আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ দিক। এর মধ্য দিয়ে ভবিষ্যতে বিভিন্ন শিক্ষামূলক গবেষণা এবং আন্তর্জাতিক স্তরে সম্পর্ক গঠনের ক্ষেত্রে সেগুলিকে কাজে লাগানোর পন্থা-পদ্ধতি নিয়ে আলোচনা হবে।

কেন্দ্রীয় সংস্কৃতি মন্ত্রক সম্প্রতি নতুন দিল্লিতে আন্তর্জাতিক বৌদ্ধ কনফেডারেশনের সঙ্গে যৌথভাবে সাংহাই সহযোগিতা সংগঠনের বিশেষজ্ঞদের নিয়ে একটি সম্মেলনের আয়োজন করে। এই সম্মেলনে বিভিন্ন রাষ্ট্রের মধ্যে সাংস্কৃতিক যোগসূত্রকে পুনঃপ্রতিষ্ঠিত করার লক্ষ্যে বৌদ্ধ ঐতিহ্যকে কিভাবে কাজে লাগানো যায় তা নিয়ে মতবিনিময় করা হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক