১১:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ০৪ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শ্রীলঙ্কা ইস্যু: ত্রাতাদের সঙ্গে এক মঞ্চে ভারত

অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে যাওয়া শ্রীলঙ্কার বিদেশি ঋণ পরিশোধ সহজ করতে ঋণদাতা দেশগুলোকে এক মঞ্চে আনার উদ্যোগ নিয়েছে জাপান ও ভারত।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির ঋণ পুনর্গঠনের জন্য আগামী বৃহস্পতিবার নতুন প্ল্যাটফর্ম গড়ার ঘোষণা আসবে বলে জানিয়েছেন জাপানের অর্থমন্ত্রী শুনিচি সুজুকি। বিশ্বের শীর্ষ ধনী সাতটি দেশের জোটভুক্ত (জি-৭) দেশগুলোর অর্থমন্ত্রীদের মধ্যে বৈঠক শেষে গত বুধবার সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান তিনি। তবে ঠিক কী কৌশলে এই মঞ্চ কাজ করবে তা জানা যায়নি।

এবারের জি-৭ জোটের সভাপ্রধান হিসেবে জাপান শ্রীলঙ্কার মতো মধ্যম আয়ের দেশগুলোর ঋণ পরিশোধ সংশ্লিষ্ট ঝুঁকি মোকাবিলার বিষয়টি আলোচনায় আনতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে। এর সঙ্গে ফ্রান্স ও জি-২০ দেশের নেতা ভারতও যোগ দিয়েছে।

জাপানের অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক ঋণগুলো সমন্বয়ের জন্য এই (প্ল্যাটফর্ম) মঞ্চের আওতায় ঋণদাতা রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা হবে। আমরা সবাই মিলে একটি কৌশল ঠিক করব। আশা করি অনেক দেশ আমাদের সঙ্গে যোগ দেবে। আমরা খুবই খুশি হব, যদি চীন এই প্ল্যাটফর্মে যোগ দেয়।’

২০২২ সালের গোড়ার দিকে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে শ্রীলঙ্কা। মুদ্রাস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছিল প্রায় ৫০ শতাংশে। টান পড়েছিল সরকারি কোষাগারেও। শ্রীলঙ্কার তখন বৈদেশিক ঋণ ছিল ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলার। কিন্তু দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল মাত্র ২৩০ কোটি ডলারের মতো। এর মধ্যে ব্যবহারযোগ্য ছিল মাত্র ৮০ কোটি ডলার।

ডলারের তীব্র সংকটে দেশটিতে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল জ্বালানি, ওষুধসহ বিভিন্ন পণ্যের আমদানি। এতে আকাশচুম্বী হয়ে পড়ে নিত্যপণ্যের দাম। একপর্যায়ে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে দেশটির জনগণ এবং পতন হয় রাজাপক্ষে সরকারের।

সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে তুলতে দেশটিকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। গত মার্চ মাসে আইএমএফের কাছ থেকে ২৯০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা পায় শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশও রিজার্ভ থেকে দেশটিকে ২০ কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে। এর মধ্যে ২০২১ সালের ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ ব্যাংক প্রথম কিস্তিতে শ্রীলঙ্কাকে ৫ কোটি ডলার ও ৩০ আগস্ট দ্বিতীয় কিস্তিতে ঋণের বাকি অর্থ ছাড়া করে। ওই ঋণ সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো শোধ করতে পারেনি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

 

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

শ্রীলঙ্কা ইস্যু: ত্রাতাদের সঙ্গে এক মঞ্চে ভারত

প্রকাশ: ০৬:৪৯:৪৬ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৩

অর্থনৈতিকভাবে দেউলিয়া হয়ে যাওয়া শ্রীলঙ্কার বিদেশি ঋণ পরিশোধ সহজ করতে ঋণদাতা দেশগুলোকে এক মঞ্চে আনার উদ্যোগ নিয়েছে জাপান ও ভারত।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশটির ঋণ পুনর্গঠনের জন্য আগামী বৃহস্পতিবার নতুন প্ল্যাটফর্ম গড়ার ঘোষণা আসবে বলে জানিয়েছেন জাপানের অর্থমন্ত্রী শুনিচি সুজুকি। বিশ্বের শীর্ষ ধনী সাতটি দেশের জোটভুক্ত (জি-৭) দেশগুলোর অর্থমন্ত্রীদের মধ্যে বৈঠক শেষে গত বুধবার সংবাদ সম্মেলনে একথা জানান তিনি। তবে ঠিক কী কৌশলে এই মঞ্চ কাজ করবে তা জানা যায়নি।

এবারের জি-৭ জোটের সভাপ্রধান হিসেবে জাপান শ্রীলঙ্কার মতো মধ্যম আয়ের দেশগুলোর ঋণ পরিশোধ সংশ্লিষ্ট ঝুঁকি মোকাবিলার বিষয়টি আলোচনায় আনতে বিশেষ উদ্যোগ নিয়েছে বলে রয়টার্স জানিয়েছে। এর সঙ্গে ফ্রান্স ও জি-২০ দেশের নেতা ভারতও যোগ দিয়েছে।

জাপানের অর্থমন্ত্রী সাংবাদিকদের বলেন, ‘শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক ঋণগুলো সমন্বয়ের জন্য এই (প্ল্যাটফর্ম) মঞ্চের আওতায় ঋণদাতা রাষ্ট্রগুলোর সঙ্গে ধারাবাহিকভাবে আলোচনা হবে। আমরা সবাই মিলে একটি কৌশল ঠিক করব। আশা করি অনেক দেশ আমাদের সঙ্গে যোগ দেবে। আমরা খুবই খুশি হব, যদি চীন এই প্ল্যাটফর্মে যোগ দেয়।’

২০২২ সালের গোড়ার দিকে তীব্র অর্থনৈতিক সংকটে পড়ে শ্রীলঙ্কা। মুদ্রাস্ফীতি বেড়ে দাঁড়িয়েছিল প্রায় ৫০ শতাংশে। টান পড়েছিল সরকারি কোষাগারেও। শ্রীলঙ্কার তখন বৈদেশিক ঋণ ছিল ৫ হাজার ১০০ কোটি ডলার। কিন্তু দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকে বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ছিল মাত্র ২৩০ কোটি ডলারের মতো। এর মধ্যে ব্যবহারযোগ্য ছিল মাত্র ৮০ কোটি ডলার।

ডলারের তীব্র সংকটে দেশটিতে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল জ্বালানি, ওষুধসহ বিভিন্ন পণ্যের আমদানি। এতে আকাশচুম্বী হয়ে পড়ে নিত্যপণ্যের দাম। একপর্যায়ে সহিংসতায় জড়িয়ে পড়ে দেশটির জনগণ এবং পতন হয় রাজাপক্ষে সরকারের।

সাত দশকের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দা কাটিয়ে তুলতে দেশটিকে সাহায্য করতে এগিয়ে আসে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ)। গত মার্চ মাসে আইএমএফের কাছ থেকে ২৯০ কোটি ডলার ঋণ সহায়তা পায় শ্রীলঙ্কা।

বাংলাদেশও রিজার্ভ থেকে দেশটিকে ২০ কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে। এর মধ্যে ২০২১ সালের ১৮ আগস্ট বাংলাদেশ ব্যাংক প্রথম কিস্তিতে শ্রীলঙ্কাকে ৫ কোটি ডলার ও ৩০ আগস্ট দ্বিতীয় কিস্তিতে ঋণের বাকি অর্থ ছাড়া করে। ওই ঋণ সময় পেরিয়ে গেলেও এখনো শোধ করতে পারেনি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক