০২:৪০ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অরুণাচলে কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সূচনা করলেন অমিত শাহ

আমাদের জমির এক বিন্দুও কেউ কেড়ে নিতে পারবে না! অরুণাচল প্রদেশে দাঁড়িয়েই কার্যত চিনকে কড়া বার্তা দিলেন অমিত শাহ। এমনকি সীমান্তের দিকে তাকানোর সাহস দেখাবে না বলেও হুঁশিয়ারি তাঁর।

সংঘাতের আবহে দুদিনের সফরে অরুণাচল প্রদেশ গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সফরের প্রথমদিনেই আজ সোমবার অরুণাচল প্রদেশের একেবারে ভারত-চিন সীমান্ত সংলগ্ন গ্রাম কিবিথুতে যান তিনি আর সেখানে ‘ভাইব্রেন্ট ভিলেজ প্রোগ্রাম’ শুরু করেন শাহ। তবে তাঁর এই সফর মোটেই ভালো চোখে নেয়নি বেজিং।

কার্যত কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে সে দেশের তরফে। চিনের বিদেশমন্ত্রকের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সীমান্ত এলাকায় সরকারি কার্যক্রম চিনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করছে।

এমনকি অরুণাচল প্রদেশকে নিজেদের এলাকা বলেও দাবি করে বেজিং। যদিও এহেন হুঁশিয়ারি গুরুত্ব দিতে নারাজ মোদী সরকার। কার্যত অরুণাচল প্রদেশে দাঁড়িয়েই নাম না করে বেজিংকে একের পর এক হুঁশিয়ারি শাহের। তিনি বলেন, আইটিবিপি এবং ভারতীয় সেনা সব সময়ে সীমান্তের প্রহরাতে আছে। আমাদের দক্ষ জওয়ানরা থাকতে আমাদের জমির দখলদারি করতে পারবে না বলে কার্যত হুঁশিয়ারি শাহের। এমনকি পা পর্যন্ত রাখতে পারবে না বলেও মন্তব্য তাঁর।

সীমান্ত ধরে একেবারে আমাদের বাহিনী পুরোপুরি মোতায়েন রয়েছে বলেও এদিন জানিয়েছেন অমিত শাহ। অন্যদিকে ‘ভাইব্রেন্ট ভিলেজ প্রোগ্রাম’ শুরু করে তিনি বলেন, ভারতের জমির উপর কেউই অধিকার জানাতে পারবে না।

অন্যদিকে আইটিবিপির জওয়ানদের প্রশংসা করে অমিত শাহ বলেন, ভারতের দিকে কেউ কুদৃষ্টি দিতে পারবে না। একটা সময়ে ছিল যখন ভারতীয় জমি যে কেউ দখল করতে পারত। কিন্তু আজ বদলে গিয়েছে! সূচের বিন্দু সমানও কেউ জমি দখল করতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন শাহ।

উল্লেখ্য, চিন ইস্যুতে একাধিক বার মোদী সরকারকে আক্রমণ শানিয়েছে কংগ্রেস। এমনকি চিন ভারতের জমি কেড়ে নেওয়াক্র মতো দাবিও কংগ্রেসের তরফে করা হয়েছে। সেখানে দাঁড়িয়ে শাহের এহেন মন্তব্য বিরোধীদের কড়া জবাব বলেই মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আইটিবিপি জওয়ানদের কারণে গোটা দেশ রাতে নিশ্চিন্তির ঘুম ঘুমোতে পারে। দিন-রাত সেনাবাহিনী সীমান্তে কাজ চালাচ্ছে বলেও জানান অমিত শাহ। বলে রাখা প্রয়োজন, সম্প্রতি অরুণাচল প্রদেশের একাধিক এলাকার নাম বদল করেছে চিন। যা নিয়ে ভারত-চিন সংঘাত চরমে। আর এর মধ্যেই সেই অরুণাচল প্রদেশেই পা রাখলেন নরেন্দ্র মোদী ডেপুটি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

অরুণাচলে কেন্দ্রীয় প্রকল্পের সূচনা করলেন অমিত শাহ

প্রকাশ: ০৬:১৪:০৩ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ এপ্রিল ২০২৩

আমাদের জমির এক বিন্দুও কেউ কেড়ে নিতে পারবে না! অরুণাচল প্রদেশে দাঁড়িয়েই কার্যত চিনকে কড়া বার্তা দিলেন অমিত শাহ। এমনকি সীমান্তের দিকে তাকানোর সাহস দেখাবে না বলেও হুঁশিয়ারি তাঁর।

সংঘাতের আবহে দুদিনের সফরে অরুণাচল প্রদেশ গিয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। সফরের প্রথমদিনেই আজ সোমবার অরুণাচল প্রদেশের একেবারে ভারত-চিন সীমান্ত সংলগ্ন গ্রাম কিবিথুতে যান তিনি আর সেখানে ‘ভাইব্রেন্ট ভিলেজ প্রোগ্রাম’ শুরু করেন শাহ। তবে তাঁর এই সফর মোটেই ভালো চোখে নেয়নি বেজিং।

কার্যত কড়া বার্তা দেওয়া হয়েছে সে দেশের তরফে। চিনের বিদেশমন্ত্রকের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, সীমান্ত এলাকায় সরকারি কার্যক্রম চিনের আঞ্চলিক সার্বভৌমত্ব লঙ্ঘন করছে।

এমনকি অরুণাচল প্রদেশকে নিজেদের এলাকা বলেও দাবি করে বেজিং। যদিও এহেন হুঁশিয়ারি গুরুত্ব দিতে নারাজ মোদী সরকার। কার্যত অরুণাচল প্রদেশে দাঁড়িয়েই নাম না করে বেজিংকে একের পর এক হুঁশিয়ারি শাহের। তিনি বলেন, আইটিবিপি এবং ভারতীয় সেনা সব সময়ে সীমান্তের প্রহরাতে আছে। আমাদের দক্ষ জওয়ানরা থাকতে আমাদের জমির দখলদারি করতে পারবে না বলে কার্যত হুঁশিয়ারি শাহের। এমনকি পা পর্যন্ত রাখতে পারবে না বলেও মন্তব্য তাঁর।

সীমান্ত ধরে একেবারে আমাদের বাহিনী পুরোপুরি মোতায়েন রয়েছে বলেও এদিন জানিয়েছেন অমিত শাহ। অন্যদিকে ‘ভাইব্রেন্ট ভিলেজ প্রোগ্রাম’ শুরু করে তিনি বলেন, ভারতের জমির উপর কেউই অধিকার জানাতে পারবে না।

অন্যদিকে আইটিবিপির জওয়ানদের প্রশংসা করে অমিত শাহ বলেন, ভারতের দিকে কেউ কুদৃষ্টি দিতে পারবে না। একটা সময়ে ছিল যখন ভারতীয় জমি যে কেউ দখল করতে পারত। কিন্তু আজ বদলে গিয়েছে! সূচের বিন্দু সমানও কেউ জমি দখল করতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন শাহ।

উল্লেখ্য, চিন ইস্যুতে একাধিক বার মোদী সরকারকে আক্রমণ শানিয়েছে কংগ্রেস। এমনকি চিন ভারতের জমি কেড়ে নেওয়াক্র মতো দাবিও কংগ্রেসের তরফে করা হয়েছে। সেখানে দাঁড়িয়ে শাহের এহেন মন্তব্য বিরোধীদের কড়া জবাব বলেই মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, আইটিবিপি জওয়ানদের কারণে গোটা দেশ রাতে নিশ্চিন্তির ঘুম ঘুমোতে পারে। দিন-রাত সেনাবাহিনী সীমান্তে কাজ চালাচ্ছে বলেও জানান অমিত শাহ। বলে রাখা প্রয়োজন, সম্প্রতি অরুণাচল প্রদেশের একাধিক এলাকার নাম বদল করেছে চিন। যা নিয়ে ভারত-চিন সংঘাত চরমে। আর এর মধ্যেই সেই অরুণাচল প্রদেশেই পা রাখলেন নরেন্দ্র মোদী ডেপুটি। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক