১২:৫৬ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

শিল্প বাঁড়াতে জম্মু-কাশ্মীরে নয়া প্রকল্প সরকারের

জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন বুধবার জৈব খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের কৃষকদের অর্থনৈতিক আয় বাড়ানোর জন্য একটি প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছে। জম্মু ও কাশ্মীরে কৃষি কাজের জন্য একটি নিরাপদ, পরিচ্ছন্ন এবং আরও টেকসই পরিবেশ তৈরি করতে উদ্যোগী সরকার। সেখানে চাষের অনুকূল পরিবেশ গড়তে সরকার প্রচেষ্টা শুরু করে দিয়েছে।

এক সরকারি আধিকারিক জানান, আগামী পাঁচ বছরে কাশ্মীরের এই কর্মসূচির জন্য বাজেটে ৮৪ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। কৃষি, এবং স্বাস্থ্যকর খাদ্য উৎপাদনের জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ১২ হাজার ৬০০টি’র বেশি কর্মসংস্থান এবং জৈব কৃষি খাতে ৩০০ টির স্কিম থাকছে।

আধিকারিক জানান, এই প্রকল্পের অধীনে জৈব চাষকে সমর্থন করা হবে। ক্লাস্টার পদ্ধতিতে জৈব চাষ সম্প্রসারণ, জৈব-ইনপুট উৎপাদন ও পুনর্ব্যবহার করা, শংসাপত্র ও বিপণন সহজতর করা এবং কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রকল্পটির লক্ষ্য, প্রতি জেলায় ছয় থেকে সাতটি জৈব ক্লাস্টার তৈরি করা এবং ২,০০০ হেক্টর জমি কভার করা। আধিকারিক জানান, জম্মু কাশ্মীরের ২,০০০ হেক্টর জমিতে চাষের কাজ শুরু হবে।

এই প্রকল্পের অধীনে খাবেন ১০ হাজার কৃষক পরিবার যাদের জৈব চাষের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এছাড়াও ২০০টি বাণিজ্যিক এবং ৩,০০০টি স্বল্প মূল্যের ভার্মিকম্পোস্ট ইউনিট এবং ১০০টি সিস্টেম ইউনিট স্থাপন করা হবে। এছাড়াও ফসল সরবরাহের জন্য দুটি বায়ো-ইনপুট উৎপাদন ইউনিটও স্থাপন করা হবে।

এই প্রকল্পের কিছু ইতিবাচক ফলাফল থাকবে বলে আশাবাদী সরকার। এর ফলে জম্মু কাশ্মীরে জৈব উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছে তারা। এর মাধ্যমে একাধিক জৈব শিল্প গড়ে উঠবে বলে মত প্রকাশ করেছে সরকার। পাশপাশি কৃষকদের জীবিকা সুরক্ষিত হবে এবং তাদের আয় উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পাবে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

শিল্প বাঁড়াতে জম্মু-কাশ্মীরে নয়া প্রকল্প সরকারের

প্রকাশ: ০৭:০৩:৩১ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৩

জম্মু ও কাশ্মীর প্রশাসন বুধবার জৈব খাদ্য উৎপাদন বৃদ্ধি এবং কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের কৃষকদের অর্থনৈতিক আয় বাড়ানোর জন্য একটি প্রকল্পের কথা ঘোষণা করেছে। জম্মু ও কাশ্মীরে কৃষি কাজের জন্য একটি নিরাপদ, পরিচ্ছন্ন এবং আরও টেকসই পরিবেশ তৈরি করতে উদ্যোগী সরকার। সেখানে চাষের অনুকূল পরিবেশ গড়তে সরকার প্রচেষ্টা শুরু করে দিয়েছে।

এক সরকারি আধিকারিক জানান, আগামী পাঁচ বছরে কাশ্মীরের এই কর্মসূচির জন্য বাজেটে ৮৪ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। কৃষি, এবং স্বাস্থ্যকর খাদ্য উৎপাদনের জন্য এই উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। এই প্রকল্পের মাধ্যমে ১২ হাজার ৬০০টি’র বেশি কর্মসংস্থান এবং জৈব কৃষি খাতে ৩০০ টির স্কিম থাকছে।

আধিকারিক জানান, এই প্রকল্পের অধীনে জৈব চাষকে সমর্থন করা হবে। ক্লাস্টার পদ্ধতিতে জৈব চাষ সম্প্রসারণ, জৈব-ইনপুট উৎপাদন ও পুনর্ব্যবহার করা, শংসাপত্র ও বিপণন সহজতর করা এবং কৃষকদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। প্রকল্পটির লক্ষ্য, প্রতি জেলায় ছয় থেকে সাতটি জৈব ক্লাস্টার তৈরি করা এবং ২,০০০ হেক্টর জমি কভার করা। আধিকারিক জানান, জম্মু কাশ্মীরের ২,০০০ হেক্টর জমিতে চাষের কাজ শুরু হবে।

এই প্রকল্পের অধীনে খাবেন ১০ হাজার কৃষক পরিবার যাদের জৈব চাষের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এছাড়াও ২০০টি বাণিজ্যিক এবং ৩,০০০টি স্বল্প মূল্যের ভার্মিকম্পোস্ট ইউনিট এবং ১০০টি সিস্টেম ইউনিট স্থাপন করা হবে। এছাড়াও ফসল সরবরাহের জন্য দুটি বায়ো-ইনপুট উৎপাদন ইউনিটও স্থাপন করা হবে।

এই প্রকল্পের কিছু ইতিবাচক ফলাফল থাকবে বলে আশাবাদী সরকার। এর ফলে জম্মু কাশ্মীরে জৈব উৎপাদন আরও বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছে তারা। এর মাধ্যমে একাধিক জৈব শিল্প গড়ে উঠবে বলে মত প্রকাশ করেছে সরকার। পাশপাশি কৃষকদের জীবিকা সুরক্ষিত হবে এবং তাদের আয় উল্লেখযোগ্য ভাবে বৃদ্ধি পাবে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক