১২:৩১ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মহামারী প্রতিরোধে ভারতের ভূমিকা প্রশংসনীয়

“ভারতের দিকে তাকিয়ে গোটা বিশ্ব”, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আজ ইন্দোরে ১৭তম প্রবাসী ভারতীয় দিবস সম্মেলন উপলক্ষে ভাষণ দেন। সেখানেই তিনি এই কথা বলেন। সম্মেলনে ভারতের উন্নয়নমূলক কাজের বিষয়ে তুলে ধরেন।

সম্মেলনের সময় জি২০-র সভাপতিত্ব নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। এই উপলক্ষে তিনি বলেন, “এই বছর ভারত জি২০ গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব করবে। ভারত এই দায়িত্বকে বড় সুযোগ হিসেবে দেখছে। ভারত সম্পর্কে বিশ্বকে বলার এটাই আমাদের কাছে সুবর্ণ একটি সুযোগ।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “এই প্রবাসী ভারতীয় দিবসটি বিভিন্ন দিক থেকে বিশেষ। মাত্র কয়েক মাস আগে, আমরা ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উদযাপন করেছি। এখানে স্বাধীনতা সংগ্রামের একটি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। দেশ অমৃত যুগে প্রবেশ করেছে। ভারতের বৈশ্বিক দৃষ্টি আরও শক্তিশালী হবে এই সময়কালে।”

এই অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ছিলেন সুরিনাম প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট চন্দ্রিকাপারসাদ সান্তোখি এবং গায়ানা প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট ডাঃ মহম্মদ ইরফান আলি। এদিন আলি বক্তব্য রাখার সময় করোনা অতিমারির সময় মোদীর নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, “যে সময় সকলে নিজেদের সীমানা বন্ধ করে দিয়েছিল ভারত এগিয়ে এসেছিল। আপনি (মোদী) যখন বিভিন্ন দেশে টিকা পাঠিয়েছিলেন তখন গোটা বিশ্বকেই দেখিয়েছিলেন আসল ভালবাসা ও আশা কাকে বলে।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “আজ ভারতে বিপুল সংখ্যক দক্ষ যুবক রয়েছেন। আমাদের তরুণদের মধ্যে দক্ষতার পাশাপাশি কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় আবেগ ও সততা রয়েছে। ভারত এই ‘দক্ষ মূলধনে’র সাহায্যে বিশ্বের উন্নয়নের ইঞ্জিন হয়ে উঠতে পারে।” প্রধানমন্ত্রী মোদী আরও বলেন, এই বছর ভারত জি২০ গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব করছে। ভারত এই দায়িত্বকে বড় সুযোগ হিসেবে দেখছে।

তাঁর কথায়, “এটা বিশ্বের কাছে ভারতের অভিজ্ঞতা থেকে শেখার সুযোগ। যখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যখন একটি সাধারণ ফ্যাক্টর হিসেবে ভারতের মানুষদের দেখা যায়, তখনই বসুধৈব কুটুম্বকমের চেতনা ফুটে ওঠে। ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ ও অঞ্চলের মানুষ যখন পৃথিবীর যেকোনও একটি দেশে গিয়ে মিলিত হন, তখন এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত-এর মনোরম অনুভূতি জেগে ওঠে।”

সম্মেলনের সময় প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “আমরা কয়েক শতাব্দী আগেই বিশ্ব বাণিজ্যের একটি অসাধারণ ঐতিহ্যের সূচনা করেছিলাম। আমরাই সীমাহীন সমুদ্র অতিক্রম করেছিলাম। ভারত দেখিয়েছিল যে কীভাবে বিভিন্ন দেশ এবং বিভিন্ন সভ্যতার মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে তুলতে হয়। ভারত দেখিয়েছিল যে বাণিজ্যই সমৃদ্ধির পথ খুলে দিতে পারে।”

প্রধানমন্ত্রী এদিন মধ্যপ্রদেশের সুখ্যাতি করে বলেন, “এই প্রবাসী ভারতীয় দিবস সম্মেলন যে মধ্যপ্রদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে, তাকে দেশের হৃদয় বলা হয়। মধ্যপ্রদেশের মা নর্মদার জল, এখানকার বন, আদিবাসী ঐতিহ্য এবং এখানকার আধ্যাত্মিকতা আপনার ভ্রমণকে অবিস্মরণীয় করে তুলবে।”

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী মোদী ইন্দোর সম্পর্কে বলেন, “ইন্দোর কোনও শহর নয়, এটি প্রবাহমান এক সময়। আমি আশা করি আপনারা সকলেই ইন্দোরে খাবার উপভোগ করবেন। এই শহরের সব খাবারই খুব সুস্বাদু। এখানে সবকিছুরই স্বাদ অবিস্মরণীয়।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

মহামারী প্রতিরোধে ভারতের ভূমিকা প্রশংসনীয়

প্রকাশ: ০৪:৩৬:০১ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ৯ জানুয়ারী ২০২৩

“ভারতের দিকে তাকিয়ে গোটা বিশ্ব”, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী আজ ইন্দোরে ১৭তম প্রবাসী ভারতীয় দিবস সম্মেলন উপলক্ষে ভাষণ দেন। সেখানেই তিনি এই কথা বলেন। সম্মেলনে ভারতের উন্নয়নমূলক কাজের বিষয়ে তুলে ধরেন।

সম্মেলনের সময় জি২০-র সভাপতিত্ব নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। এই উপলক্ষে তিনি বলেন, “এই বছর ভারত জি২০ গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব করবে। ভারত এই দায়িত্বকে বড় সুযোগ হিসেবে দেখছে। ভারত সম্পর্কে বিশ্বকে বলার এটাই আমাদের কাছে সুবর্ণ একটি সুযোগ।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “এই প্রবাসী ভারতীয় দিবসটি বিভিন্ন দিক থেকে বিশেষ। মাত্র কয়েক মাস আগে, আমরা ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উদযাপন করেছি। এখানে স্বাধীনতা সংগ্রামের একটি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হয়েছে। দেশ অমৃত যুগে প্রবেশ করেছে। ভারতের বৈশ্বিক দৃষ্টি আরও শক্তিশালী হবে এই সময়কালে।”

এই অনুষ্ঠানের বিশেষ অতিথি ছিলেন সুরিনাম প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট চন্দ্রিকাপারসাদ সান্তোখি এবং গায়ানা প্রজাতন্ত্রের প্রেসিডেন্ট ডাঃ মহম্মদ ইরফান আলি। এদিন আলি বক্তব্য রাখার সময় করোনা অতিমারির সময় মোদীর নেতৃত্বের প্রশংসা করেন।

তিনি বলেন, “যে সময় সকলে নিজেদের সীমানা বন্ধ করে দিয়েছিল ভারত এগিয়ে এসেছিল। আপনি (মোদী) যখন বিভিন্ন দেশে টিকা পাঠিয়েছিলেন তখন গোটা বিশ্বকেই দেখিয়েছিলেন আসল ভালবাসা ও আশা কাকে বলে।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “আজ ভারতে বিপুল সংখ্যক দক্ষ যুবক রয়েছেন। আমাদের তরুণদের মধ্যে দক্ষতার পাশাপাশি কাজ করার জন্য প্রয়োজনীয় আবেগ ও সততা রয়েছে। ভারত এই ‘দক্ষ মূলধনে’র সাহায্যে বিশ্বের উন্নয়নের ইঞ্জিন হয়ে উঠতে পারে।” প্রধানমন্ত্রী মোদী আরও বলেন, এই বছর ভারত জি২০ গোষ্ঠীর সভাপতিত্ব করছে। ভারত এই দায়িত্বকে বড় সুযোগ হিসেবে দেখছে।

তাঁর কথায়, “এটা বিশ্বের কাছে ভারতের অভিজ্ঞতা থেকে শেখার সুযোগ। যখন বিশ্বের বিভিন্ন দেশে যখন একটি সাধারণ ফ্যাক্টর হিসেবে ভারতের মানুষদের দেখা যায়, তখনই বসুধৈব কুটুম্বকমের চেতনা ফুটে ওঠে। ভারতের বিভিন্ন প্রদেশ ও অঞ্চলের মানুষ যখন পৃথিবীর যেকোনও একটি দেশে গিয়ে মিলিত হন, তখন এক ভারত, শ্রেষ্ঠ ভারত-এর মনোরম অনুভূতি জেগে ওঠে।”

সম্মেলনের সময় প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “আমরা কয়েক শতাব্দী আগেই বিশ্ব বাণিজ্যের একটি অসাধারণ ঐতিহ্যের সূচনা করেছিলাম। আমরাই সীমাহীন সমুদ্র অতিক্রম করেছিলাম। ভারত দেখিয়েছিল যে কীভাবে বিভিন্ন দেশ এবং বিভিন্ন সভ্যতার মধ্যে ব্যবসায়িক সম্পর্ক গড়ে তুলতে হয়। ভারত দেখিয়েছিল যে বাণিজ্যই সমৃদ্ধির পথ খুলে দিতে পারে।”

প্রধানমন্ত্রী এদিন মধ্যপ্রদেশের সুখ্যাতি করে বলেন, “এই প্রবাসী ভারতীয় দিবস সম্মেলন যে মধ্যপ্রদেশের মাটিতে অনুষ্ঠিত হচ্ছে, তাকে দেশের হৃদয় বলা হয়। মধ্যপ্রদেশের মা নর্মদার জল, এখানকার বন, আদিবাসী ঐতিহ্য এবং এখানকার আধ্যাত্মিকতা আপনার ভ্রমণকে অবিস্মরণীয় করে তুলবে।”

সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী মোদী ইন্দোর সম্পর্কে বলেন, “ইন্দোর কোনও শহর নয়, এটি প্রবাহমান এক সময়। আমি আশা করি আপনারা সকলেই ইন্দোরে খাবার উপভোগ করবেন। এই শহরের সব খাবারই খুব সুস্বাদু। এখানে সবকিছুরই স্বাদ অবিস্মরণীয়।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক