১২:৫৪ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ০৫ মার্চ ২০২৪, ২২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

মূল্য চোকাতে হবে সন্ত্রাসে মদদ দানকারীদের

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়তে বিশ্বকে একজোট হওয়ার বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ দিন ‘নো মানি ফর টেরর’ কনফারেন্সে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “সন্ত্রাসবাদকে গোড়া থেকে নির্মূল করতে আরও বড়, সক্রিয় ও সঠিক ব্যবস্থাপনা চাই। যদি আমরা নিজেদের নাগরিককে সুরক্ষিত দেখতে চাই, তবে সন্ত্রাসবাদ আমাদের দোরগোড়ায় পৌছনো অবধি অপেক্ষা করা যাবে না”। নাম না করেই পাকিস্তানকেও কড়া বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “বেশ কিছু দেশ সন্ত্রাসবাদকে মত দেওয়া নিজেদের বৈদেশিক নীতির অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে। তারা আর্থিক ও রাজনৈতিক সমর্থন করেন সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলোকে। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোও যেন এটা মনে না করে যে যুদ্ধ হচ্ছে না, তার মানেই শান্তি বজায় রয়েছে। ছায়াযুদ্ধও অত্যন্ত ভয়ঙ্কর ও হিংস্র।”

আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো বর্তমানে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হল সন্ত্রাসবাদ। ক্রমবর্ধমান সন্ত্রাসবাদ দমনেই এদিনের কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়। মোট ৭২টি দেশ ও সন্ত্রাস দমনের সঙ্গে যুক্ত ১৫টি সংস্থা ‘নো মানি ফর টেরর’ নামক এই আলোচনাসভায় যোগ দিয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যে সমস্ত দেশ সন্ত্রাসবাদে মদদ দিচ্ছে, তাদের মূল্য চোকাতে হবে। বেশ কিছু ব্যক্তি ও সংগঠন সন্ত্রাসবাদীদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে, তাদেরও আলাদাভাবে চিহ্নিত করা প্রয়োজন।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সন্ত্রাসবাদকে গোড়া থেকে নির্মূল করা প্রয়োজন। এর জন্য আরও বড় ও সক্রিয় প্রতিক্রিয়ার প্রয়োজন। যদি আমরা নিজেদের দেশের নাগরিকদের সুরক্ষিত রাখতে চাই, তবে সন্ত্রাসবাদ আমাদের দোরগোড়ায় পৌঁছনো অবধি অপেক্ষা করতে পারব না সন্ত্রাসবাদীদের রুখতে হবে আমাদের, তাদের সমর্থনকারী নেটওয়ার্ককে ভাঙতে হবে এবং আর্থিক সাহায্য রুখতে হবে।”

রাষ্ট্র সমর্থিত সন্ত্রাসবাদ ও ছায়াযুদ্ধ নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। তিনি বলেন, “বেশ কিছু দেশ সন্ত্রাসবাদে মদদ দেওয়াকে তাদের বিদেশনীতির অন্তর্গত করে নিয়েছে। তারা সন্ত্রাসবাদীদের আদর্শগত, আর্থিক ও রাজনৈতিক সমর্থন জোগায়। এই সমস্ত দেশের কড়া মূল্য চোকানো উচিত।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “বহু দশক ধরেই ভারত সন্ত্রাসবাদের সমস্যায় ভূক্তভোগী এবং তারা সাহসের সঙ্গে এই সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে লড়াই করেছে। একটা হামলাকেও আমরা অনেক বলে মনে করি। একজনের প্রাণহানিও আমাদের কাছে অনেক বেশি। যতদিন না সন্ত্রাসবাদকে আমরা গোড়া থেকে নির্মূল করছি, ততদিন আমরা ক্ষান্ত হব না। সমস্ত সন্ত্রাসবাদী হামলাকেই সমান গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত ও তার কড়া জবাব দেওয়া উচিত। সন্ত্রাসবাদের মোকাবিলায় অস্পষ্ট নীতি অনুসরণ করলে হবে না। সন্ত্রাসবাদ মানবতা, স্বাধীনতা ও সভ্যতার উপরে হামলা।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:
জনপ্রিয়

মূল্য চোকাতে হবে সন্ত্রাসে মদদ দানকারীদের

প্রকাশ: ০২:১৩:১৯ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ১৮ নভেম্বর ২০২২

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়তে বিশ্বকে একজোট হওয়ার বার্তা দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এ দিন ‘নো মানি ফর টেরর’ কনফারেন্সে যোগ দিয়ে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “সন্ত্রাসবাদকে গোড়া থেকে নির্মূল করতে আরও বড়, সক্রিয় ও সঠিক ব্যবস্থাপনা চাই। যদি আমরা নিজেদের নাগরিককে সুরক্ষিত দেখতে চাই, তবে সন্ত্রাসবাদ আমাদের দোরগোড়ায় পৌছনো অবধি অপেক্ষা করা যাবে না”। নাম না করেই পাকিস্তানকেও কড়া বার্তা দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, “বেশ কিছু দেশ সন্ত্রাসবাদকে মত দেওয়া নিজেদের বৈদেশিক নীতির অন্তর্ভুক্ত করে নিয়েছে। তারা আর্থিক ও রাজনৈতিক সমর্থন করেন সন্ত্রাসবাদী সংগঠনগুলোকে। আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোও যেন এটা মনে না করে যে যুদ্ধ হচ্ছে না, তার মানেই শান্তি বজায় রয়েছে। ছায়াযুদ্ধও অত্যন্ত ভয়ঙ্কর ও হিংস্র।”

আন্তর্জাতিক ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলো বর্তমানে চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে, তার মধ্যে অন্যতম হল সন্ত্রাসবাদ। ক্রমবর্ধমান সন্ত্রাসবাদ দমনেই এদিনের কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়। মোট ৭২টি দেশ ও সন্ত্রাস দমনের সঙ্গে যুক্ত ১৫টি সংস্থা ‘নো মানি ফর টেরর’ নামক এই আলোচনাসভায় যোগ দিয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “যে সমস্ত দেশ সন্ত্রাসবাদে মদদ দিচ্ছে, তাদের মূল্য চোকাতে হবে। বেশ কিছু ব্যক্তি ও সংগঠন সন্ত্রাসবাদীদের প্রতি সহানুভূতি প্রকাশ করে, তাদেরও আলাদাভাবে চিহ্নিত করা প্রয়োজন।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “সন্ত্রাসবাদকে গোড়া থেকে নির্মূল করা প্রয়োজন। এর জন্য আরও বড় ও সক্রিয় প্রতিক্রিয়ার প্রয়োজন। যদি আমরা নিজেদের দেশের নাগরিকদের সুরক্ষিত রাখতে চাই, তবে সন্ত্রাসবাদ আমাদের দোরগোড়ায় পৌঁছনো অবধি অপেক্ষা করতে পারব না সন্ত্রাসবাদীদের রুখতে হবে আমাদের, তাদের সমর্থনকারী নেটওয়ার্ককে ভাঙতে হবে এবং আর্থিক সাহায্য রুখতে হবে।”

রাষ্ট্র সমর্থিত সন্ত্রাসবাদ ও ছায়াযুদ্ধ নিয়েও কথা বলেন প্রধানমন্ত্রী মোদী। তিনি বলেন, “বেশ কিছু দেশ সন্ত্রাসবাদে মদদ দেওয়াকে তাদের বিদেশনীতির অন্তর্গত করে নিয়েছে। তারা সন্ত্রাসবাদীদের আদর্শগত, আর্থিক ও রাজনৈতিক সমর্থন জোগায়। এই সমস্ত দেশের কড়া মূল্য চোকানো উচিত।”

প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, “বহু দশক ধরেই ভারত সন্ত্রাসবাদের সমস্যায় ভূক্তভোগী এবং তারা সাহসের সঙ্গে এই সন্ত্রাসবাদের সঙ্গে লড়াই করেছে। একটা হামলাকেও আমরা অনেক বলে মনে করি। একজনের প্রাণহানিও আমাদের কাছে অনেক বেশি। যতদিন না সন্ত্রাসবাদকে আমরা গোড়া থেকে নির্মূল করছি, ততদিন আমরা ক্ষান্ত হব না। সমস্ত সন্ত্রাসবাদী হামলাকেই সমান গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত ও তার কড়া জবাব দেওয়া উচিত। সন্ত্রাসবাদের মোকাবিলায় অস্পষ্ট নীতি অনুসরণ করলে হবে না। সন্ত্রাসবাদ মানবতা, স্বাধীনতা ও সভ্যতার উপরে হামলা।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক