০৪:৪২ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ৩০ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

ত্রিপক্ষীয় সড়ক দ্রুত চালু করবে ভারত-থাইল্যান্ড

ভারত ও থাইল্যান্ডের পররাষ্ট্র দপ্তরের মধ্যকার ষষ্ঠ রাউন্ডের পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২১ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার, নয়াদিল্লীতে বৈঠকে বসেন উভয় রাষ্ট্রের উর্ধ্বতন কূটনীতিক কর্মকর্তাগণ। বৈঠকে ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ড ত্রিপক্ষীয় হাইওয়ে এবং বৃহত্তর বন্দর সংযোগের প্রাথমিক কার্যকারিতা সহ সংযোগ উন্নত করণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

পরবর্তীতে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তরের এক বিবৃতিতে তথ্যটি নিশ্চিত করা হয়। জানা গিয়েছে, বৈঠক চলাকালে উভয় পক্ষই রাজনৈতিক, প্রতিরক্ষা এবং নিরাপত্তা সহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সমগ্র ধারা পর্যালোচনা করেছে। এছাড়াও, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক, সাংস্কৃতিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, পর্যটন, জনগণের মধ্যে সম্পর্ক, কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার, ভ্যাকসিন সহযোগিতা এবং পারস্পরিক স্বার্থের সকল বিষয়েই বিস্তর মতবিনিময় করেন তারা।

মহামারীর কারণে প্রায় তিন বছর পর দু দেশের মধ্যে এ ধরণের বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। এসময়, জাতিসংঘ সহ অন্যান্য বহুপাক্ষিক ফোরামগুলোতে এঁকে অন্যকে সমর্থন দেয়ার বিষয়েও আলোচনা করেন প্রতিনিধিগণ। বৈঠকে, ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র দপ্তরের সচিব (পূর্ব) সৌরভ কুমার এবং থাই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব থানি থংফাকদি।

বৈঠকের শুরুতেই থাইল্যান্ডকে বিমসটেকের নয়া সভাপতি হিসেবে অভিনন্দন জানান সৌরভ কুমার। পাশাপাশি থাইল্যান্ডের কার্যনির্বাহী মেয়াদকালে ভারতের পক্ষ হতে সম্পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাসও দেন তিনি। বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী রাজকুমার রঞ্জন সিং এর সাথেও দেখা করেন থাই প্রতিনিধি দল।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর কূটনৈতিক সম্পর্কের ৭৫ বছর পূর্ণ করতে চলেছে ভারত ও থাইল্যান্ড। উভয় পক্ষই এই যুগান্তকারী উপলক্ষ্যটি যথাযথভাবে উদযাপন করতে সম্মত হয়েছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ত্রিপক্ষীয় সড়ক দ্রুত চালু করবে ভারত-থাইল্যান্ড

প্রকাশ: ১০:২৭:৩২ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২১ এপ্রিল ২০২২

ভারত ও থাইল্যান্ডের পররাষ্ট্র দপ্তরের মধ্যকার ষষ্ঠ রাউন্ডের পরামর্শ সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২১ এপ্রিল, বৃহস্পতিবার, নয়াদিল্লীতে বৈঠকে বসেন উভয় রাষ্ট্রের উর্ধ্বতন কূটনীতিক কর্মকর্তাগণ। বৈঠকে ভারত-মিয়ানমার-থাইল্যান্ড ত্রিপক্ষীয় হাইওয়ে এবং বৃহত্তর বন্দর সংযোগের প্রাথমিক কার্যকারিতা সহ সংযোগ উন্নত করণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

পরবর্তীতে ভারতের পররাষ্ট্র দপ্তরের এক বিবৃতিতে তথ্যটি নিশ্চিত করা হয়। জানা গিয়েছে, বৈঠক চলাকালে উভয় পক্ষই রাজনৈতিক, প্রতিরক্ষা এবং নিরাপত্তা সহ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সমগ্র ধারা পর্যালোচনা করেছে। এছাড়াও, অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক, সাংস্কৃতিক, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, পর্যটন, জনগণের মধ্যে সম্পর্ক, কোভিড-১৯ পরবর্তী অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার, ভ্যাকসিন সহযোগিতা এবং পারস্পরিক স্বার্থের সকল বিষয়েই বিস্তর মতবিনিময় করেন তারা।

মহামারীর কারণে প্রায় তিন বছর পর দু দেশের মধ্যে এ ধরণের বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। এসময়, জাতিসংঘ সহ অন্যান্য বহুপাক্ষিক ফোরামগুলোতে এঁকে অন্যকে সমর্থন দেয়ার বিষয়েও আলোচনা করেন প্রতিনিধিগণ। বৈঠকে, ভারতীয় দলের নেতৃত্ব দেন পররাষ্ট্র দপ্তরের সচিব (পূর্ব) সৌরভ কুমার এবং থাই প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের স্থায়ী সচিব থানি থংফাকদি।

বৈঠকের শুরুতেই থাইল্যান্ডকে বিমসটেকের নয়া সভাপতি হিসেবে অভিনন্দন জানান সৌরভ কুমার। পাশাপাশি থাইল্যান্ডের কার্যনির্বাহী মেয়াদকালে ভারতের পক্ষ হতে সম্পূর্ণ সহযোগিতার আশ্বাসও দেন তিনি। বৈঠক শেষে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী রাজকুমার রঞ্জন সিং এর সাথেও দেখা করেন থাই প্রতিনিধি দল।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর কূটনৈতিক সম্পর্কের ৭৫ বছর পূর্ণ করতে চলেছে ভারত ও থাইল্যান্ড। উভয় পক্ষই এই যুগান্তকারী উপলক্ষ্যটি যথাযথভাবে উদযাপন করতে সম্মত হয়েছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক