০৬:০৫ পূর্বাহ্ন, শুক্রবার, ১৪ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

আয়ুষ খাতের স্টার্টআপও শীঘ্রই ইউনিকর্ন হবে: মোদী

ভারতের প্রাচীন আয়ুর্বেদ চিকিৎসাকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরার একটি অভিনব প্রচেষ্টা শুরু করল মোদী সরকার৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বুধবার গুজরাতের গান্ধীনগরে মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবিন্দ কুমার জুগনাথ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিজি ডঃ টেড্রোস আধানম ঘেব্রেয়াসুসের উপস্থিতিতে বিশ্ব আয়ুষ বিনিয়োগ ও উদ্ভাবন শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

এদিন তিনি বলেন, “ভারত বিদেশী নাগরিকদের জন্য একটি বিশেষ আয়ুষ ভিসা বিভাগ চালু করতে চলেছে, দেশের আয়ুর্বেদ চিকিৎসার সুযোগ নেওয়ার জন্য যারা দেশে আসতে চায় তাঁরা এই বিশেষ ভিসার সুযোগ নিতে পারবেন৷” এদিন তিনি ভারতের ঐতিহ্যগত চিকিৎসা সুবিধা নেওয়ার জন্য বিদেশীদের আমন্ত্রণও জানান।

ভারতের আয়ুর্বেদিক ওষুধের বিদেশী নাগরিকদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মোকাবিলার জন্য, প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছেন, “যারা আয়ুষ থেরাপির সুবিধা নিতে ভারতে আসতে চায় সেই সমস্ত বিদেশী নাগরিকদের জন্য একটি বিশেষ আয়ুষ ভিসা বিভাগ চালু করতে চলেছে সরকার। আয়ুষের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ এবং উদ্ভাবনের সম্ভাবনা সীমাহীন।”

তিনি আরও যোগ করেন, “আমরা ইতিমধ্যেই আয়ুষ ওষুধ, পুষ্টিপরিপূরক এবং প্রসাধনী উৎপাদনে একটি অভূতপূর্ব বৃদ্ধি প্রত্যক্ষ করছি। এবার আমরা একটি বিশেষ আয়ুষ হলমার্ক তৈরি করার পথে রয়েছি। এই হলমার্কটি ভারতে তৈরি সর্বোচ্চ মানের আয়ুষ পণ্যগুলিতে প্রয়োগ করা হবে।”

বিশ্বজুড়ে ঐতিহ্যবাহী ওষুধের জন্য প্রথম এবং একমাত্র গ্লোবাল কেন্দ্র হতে চলেছে জামনগরের এই কেন্দ্রটি। বিশ্বব্যাপী সুস্থতার উপায় খুঁজতে একটি আন্তর্জাতিক কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে এটিকে।

গান্ধীনগরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে ঔষধি গাছের চাষের সঙ্গে জড়িত কৃষকদের সহজেই বাজারের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুবিধা পাওয়া উচিত। এর জন্য, সরকার আয়ুষ ই-মার্কেটপ্লেসের আধুনিকীকরণ এবং সম্প্রসারণের জন্যও কাজ করছে।”

এখনও পর্যন্ত দেশের ১৪ টি নতুন স্টার্টআপ, ইউনিকর্ন ক্লাবে যোগ দিয়েছে বলেও জানিয়েছেন মোদী। এদিন তিনি বলেন, “আমি আত্মবিশ্বাসী যে শীঘ্রই আয়ুষ নিয়ে কাজ করা স্টার্টআপও ইউনিকর্নের ক্লাবে যোগ দেবে।”

এদিন অনুষ্ঠানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রধান বলেন, “গোটা বিশ্ব ভারতে আসবে এবং ভারত ঐতিহ্যবাহী ওষুধের মাধ্যমে গোটা বিশ্বের কাছে পৌঁছে যাবে।” এদিকে প্রধানমন্ত্রী মোদী এদিন বলেন, “সমগ্র মানবতার সেবা করার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে অংশীদারিত্বকে ভারত একটি বিশাল দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করছে।”

এদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেন, “আগামী ২৫ বছরে ভারতের প্রতিটি পরিবার পারম্পরিক ওষুধের উপর নির্ভর করবে।” মঙ্গলবার মঞ্চে উঠেই গুজরাতি ভাষায় সকলকে সম্বোধন করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। বলেন, “কেমছো.. মাজামা?” যা শুনে উচ্ছ্বসিত হন প্রধানমন্ত্রী মোদীও।

নির্মাণ হতে চলা কেন্দ্রটি প্রসঙ্গে ঘেব্রিয়েসাস মন্তব্য করেন, “এটি সত্যিই একটি আন্তর্জাতিক প্রকল্প… এর অর্থ হল ভারত বিশ্বের কাছে পৌঁছবে, অন্য দিকে সমগ্র বিশ্বও ভারতে আসবে।”

এদিকে মোদী বলেন, “বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রথাগত ওষুধের এই কেন্দ্রের সাথে একটি নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে, যা ভারতের সম্ভাবনা এবং অবদানকে সম্মান করে। ভারত এটিকে একটি বিশাল দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করছে এবং বিশ্বের মানুষকে উন্নত চিকিৎসা সমাধান দিতে সাহায্য করবে। এটি স্বাধীনতার অমৃত মহোৎসবের অংশ।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

আয়ুষ খাতের স্টার্টআপও শীঘ্রই ইউনিকর্ন হবে: মোদী

প্রকাশ: ১০:১৩:২৯ অপরাহ্ন, বুধবার, ২০ এপ্রিল ২০২২

ভারতের প্রাচীন আয়ুর্বেদ চিকিৎসাকে বিশ্বের সামনে তুলে ধরার একটি অভিনব প্রচেষ্টা শুরু করল মোদী সরকার৷ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বুধবার গুজরাতের গান্ধীনগরে মরিশাসের প্রধানমন্ত্রী প্রবিন্দ কুমার জুগনাথ এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ডিজি ডঃ টেড্রোস আধানম ঘেব্রেয়াসুসের উপস্থিতিতে বিশ্ব আয়ুষ বিনিয়োগ ও উদ্ভাবন শীর্ষ সম্মেলনের উদ্বোধন করেন।

এদিন তিনি বলেন, “ভারত বিদেশী নাগরিকদের জন্য একটি বিশেষ আয়ুষ ভিসা বিভাগ চালু করতে চলেছে, দেশের আয়ুর্বেদ চিকিৎসার সুযোগ নেওয়ার জন্য যারা দেশে আসতে চায় তাঁরা এই বিশেষ ভিসার সুযোগ নিতে পারবেন৷” এদিন তিনি ভারতের ঐতিহ্যগত চিকিৎসা সুবিধা নেওয়ার জন্য বিদেশীদের আমন্ত্রণও জানান।

ভারতের আয়ুর্বেদিক ওষুধের বিদেশী নাগরিকদের ক্রমবর্ধমান চাহিদা মোকাবিলার জন্য, প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেছেন, “যারা আয়ুষ থেরাপির সুবিধা নিতে ভারতে আসতে চায় সেই সমস্ত বিদেশী নাগরিকদের জন্য একটি বিশেষ আয়ুষ ভিসা বিভাগ চালু করতে চলেছে সরকার। আয়ুষের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ এবং উদ্ভাবনের সম্ভাবনা সীমাহীন।”

তিনি আরও যোগ করেন, “আমরা ইতিমধ্যেই আয়ুষ ওষুধ, পুষ্টিপরিপূরক এবং প্রসাধনী উৎপাদনে একটি অভূতপূর্ব বৃদ্ধি প্রত্যক্ষ করছি। এবার আমরা একটি বিশেষ আয়ুষ হলমার্ক তৈরি করার পথে রয়েছি। এই হলমার্কটি ভারতে তৈরি সর্বোচ্চ মানের আয়ুষ পণ্যগুলিতে প্রয়োগ করা হবে।”

বিশ্বজুড়ে ঐতিহ্যবাহী ওষুধের জন্য প্রথম এবং একমাত্র গ্লোবাল কেন্দ্র হতে চলেছে জামনগরের এই কেন্দ্রটি। বিশ্বব্যাপী সুস্থতার উপায় খুঁজতে একটি আন্তর্জাতিক কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলা হচ্ছে এটিকে।

গান্ধীনগরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, “এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ যে ঔষধি গাছের চাষের সঙ্গে জড়িত কৃষকদের সহজেই বাজারের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার সুবিধা পাওয়া উচিত। এর জন্য, সরকার আয়ুষ ই-মার্কেটপ্লেসের আধুনিকীকরণ এবং সম্প্রসারণের জন্যও কাজ করছে।”

এখনও পর্যন্ত দেশের ১৪ টি নতুন স্টার্টআপ, ইউনিকর্ন ক্লাবে যোগ দিয়েছে বলেও জানিয়েছেন মোদী। এদিন তিনি বলেন, “আমি আত্মবিশ্বাসী যে শীঘ্রই আয়ুষ নিয়ে কাজ করা স্টার্টআপও ইউনিকর্নের ক্লাবে যোগ দেবে।”

এদিন অনুষ্ঠানে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রধান বলেন, “গোটা বিশ্ব ভারতে আসবে এবং ভারত ঐতিহ্যবাহী ওষুধের মাধ্যমে গোটা বিশ্বের কাছে পৌঁছে যাবে।” এদিকে প্রধানমন্ত্রী মোদী এদিন বলেন, “সমগ্র মানবতার সেবা করার জন্য বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে অংশীদারিত্বকে ভারত একটি বিশাল দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করছে।”

এদিন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বলেন, “আগামী ২৫ বছরে ভারতের প্রতিটি পরিবার পারম্পরিক ওষুধের উপর নির্ভর করবে।” মঙ্গলবার মঞ্চে উঠেই গুজরাতি ভাষায় সকলকে সম্বোধন করেন বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান। বলেন, “কেমছো.. মাজামা?” যা শুনে উচ্ছ্বসিত হন প্রধানমন্ত্রী মোদীও।

নির্মাণ হতে চলা কেন্দ্রটি প্রসঙ্গে ঘেব্রিয়েসাস মন্তব্য করেন, “এটি সত্যিই একটি আন্তর্জাতিক প্রকল্প… এর অর্থ হল ভারত বিশ্বের কাছে পৌঁছবে, অন্য দিকে সমগ্র বিশ্বও ভারতে আসবে।”

এদিকে মোদী বলেন, “বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা প্রথাগত ওষুধের এই কেন্দ্রের সাথে একটি নতুন অংশীদারিত্ব প্রতিষ্ঠা করেছে, যা ভারতের সম্ভাবনা এবং অবদানকে সম্মান করে। ভারত এটিকে একটি বিশাল দায়িত্ব হিসেবে গ্রহণ করছে এবং বিশ্বের মানুষকে উন্নত চিকিৎসা সমাধান দিতে সাহায্য করবে। এটি স্বাধীনতার অমৃত মহোৎসবের অংশ।” খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক