০৯:২৬ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ৪ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তর পরিদর্শনে রাজনাথ

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তর পরিদর্শন করেছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। ১৩ এপ্রিল, বুধবার, হাওয়াইতে অবস্থিত গুরুত্বপূর্ণ এই সামরিক ঘাঁটি দেখতে যান তিনি। সেখানে ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে স্বাগত জানান ইউএস ইন্দোপ্যাকম কমান্ডার অ্যাডমিরাল জন অ্যাকুইলিনো।

পরবর্তীতে এক টুইটবার্তায় বিষয়টি জানান রাজনাথ সিং নিজেই। তিনি লিখেছেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তরে পরিদর্শনের জন্য হাওয়াইয়ের হনলুলুতে পৌঁছালাম। সংক্ষিপ্ত এই সফরকালে ইউএস আর্মি প্যাসিফিকের পাশাপাশি প্যাসিফিক এয়ার ফোর্সের সদর দপ্তরও পরিদর্শন করব।”

এছাড়া, সফরকালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবহর এবং হাওয়াইয়ের সামরিক ঘাঁটির প্রশিক্ষণ সুবিধাদিও পরিদর্শন করেছেন মোদী মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ এই সদস্য। ভিন্ন এক টুইটে রাজনাথ সিং বলেন, “ওআহু দ্বীপের আশেপাশে অবস্থিত @USARPAC-এর বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সাইট পরিদর্শন করেছি। ইউনাইটেড স্টেটস ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ড এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিস্তৃত সম্পৃক্ততা রয়েছে। আমরা একত্রে বেশ কয়েকটি সামরিক মহড়া, প্রশিক্ষণ ইভেন্ট আয়োজন করেছি। এর দরুণ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সামরিক সম্পর্ক ব্যাপক জোরদার হয়েছে।”

এদিকে, বৃহস্পতিবারই ভারতে ফেরার কথা রয়েছে রাজনাথের। বহুল প্রতীক্ষিত ৪র্থ ভারত-মার্কিন ২+২ মন্ত্রীপর্যায়ের সংলাপে যোগ দিতে গত ১০ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন তিনি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ১১ এপ্রিল, সোমবার, মার্কিন মুল্লুকের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। সংলাপে মার্কিন প্রতিনিধিত্ব করেন বাইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রী লয়েড অস্টিন।

এসময়, বৈশ্বিক জ্বালানী, প্রতিরক্ষা, উন্নয়ন এবং নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক অংশীদারিত্বের গুরুত্ব পুনর্ব্যক্ত করেন উপস্থিত চার মন্ত্রী। ইউক্রেনের ক্রমবর্ধমান মানবিক সংকট মোকাবেলায় সম্ভাব্য করণীয় নিয়েও বিস্তর আলোচনা করেছেন তারা। বৈঠকের পর এক যৌথ প্রেস বিবৃতিতে সংলাপের আদ্যোপান্ত তুলে ধরা হয়। সেখানে, ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্ব আরও মজবুতের উপর জোর দেয়া হয়েছে।

একটি মুক্ত, উন্মুক্ত, এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য কোয়াড সম্পর্কের স্থিতিশীলতার উপরও জোর দেন তারা। এজন্য, কোয়াড দেশগুলোর মধ্যকার পারস্পরিক বাণিজ্য, ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম এবং উন্নয়ন বরাদ্দ আরও বাড়ানোর বিষয়ে বিশদ মতবিনিময় করেন চার মন্ত্রী। ভারত-মার্কিন এফটিএ নিয়েও আলোচনা হয়েছে বৈঠকে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তর পরিদর্শনে রাজনাথ

প্রকাশ: ০৮:০০:৪৯ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২২

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তর পরিদর্শন করেছেন ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং। ১৩ এপ্রিল, বুধবার, হাওয়াইতে অবস্থিত গুরুত্বপূর্ণ এই সামরিক ঘাঁটি দেখতে যান তিনি। সেখানে ভারতীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রীকে স্বাগত জানান ইউএস ইন্দোপ্যাকম কমান্ডার অ্যাডমিরাল জন অ্যাকুইলিনো।

পরবর্তীতে এক টুইটবার্তায় বিষয়টি জানান রাজনাথ সিং নিজেই। তিনি লিখেছেন, “মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ডের সদর দপ্তরে পরিদর্শনের জন্য হাওয়াইয়ের হনলুলুতে পৌঁছালাম। সংক্ষিপ্ত এই সফরকালে ইউএস আর্মি প্যাসিফিকের পাশাপাশি প্যাসিফিক এয়ার ফোর্সের সদর দপ্তরও পরিদর্শন করব।”

এছাড়া, সফরকালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রশান্ত মহাসাগরীয় নৌবহর এবং হাওয়াইয়ের সামরিক ঘাঁটির প্রশিক্ষণ সুবিধাদিও পরিদর্শন করেছেন মোদী মন্ত্রীসভার গুরুত্বপূর্ণ এই সদস্য। ভিন্ন এক টুইটে রাজনাথ সিং বলেন, “ওআহু দ্বীপের আশেপাশে অবস্থিত @USARPAC-এর বিভিন্ন প্রশিক্ষণ সাইট পরিদর্শন করেছি। ইউনাইটেড স্টেটস ইন্দো-প্যাসিফিক কমান্ড এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর বিস্তৃত সম্পৃক্ততা রয়েছে। আমরা একত্রে বেশ কয়েকটি সামরিক মহড়া, প্রশিক্ষণ ইভেন্ট আয়োজন করেছি। এর দরুণ সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে সামরিক সম্পর্ক ব্যাপক জোরদার হয়েছে।”

এদিকে, বৃহস্পতিবারই ভারতে ফেরার কথা রয়েছে রাজনাথের। বহুল প্রতীক্ষিত ৪র্থ ভারত-মার্কিন ২+২ মন্ত্রীপর্যায়ের সংলাপে যোগ দিতে গত ১০ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্রে গিয়েছিলেন তিনি এবং পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর। গত ১১ এপ্রিল, সোমবার, মার্কিন মুল্লুকের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে বৈঠকটি অনুষ্ঠিত হয়। সংলাপে মার্কিন প্রতিনিধিত্ব করেন বাইডেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্টনি ব্লিঙ্কেন এবং প্রতিরক্ষা মন্ত্রী লয়েড অস্টিন।

এসময়, বৈশ্বিক জ্বালানী, প্রতিরক্ষা, উন্নয়ন এবং নিরাপত্তার ক্ষেত্রে ভারত ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ব্যাপক অংশীদারিত্বের গুরুত্ব পুনর্ব্যক্ত করেন উপস্থিত চার মন্ত্রী। ইউক্রেনের ক্রমবর্ধমান মানবিক সংকট মোকাবেলায় সম্ভাব্য করণীয় নিয়েও বিস্তর আলোচনা করেছেন তারা। বৈঠকের পর এক যৌথ প্রেস বিবৃতিতে সংলাপের আদ্যোপান্ত তুলে ধরা হয়। সেখানে, ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্ব আরও মজবুতের উপর জোর দেয়া হয়েছে।

একটি মুক্ত, উন্মুক্ত, এবং অন্তর্ভুক্তিমূলক ইন্দো-প্যাসিফিকের জন্য কোয়াড সম্পর্কের স্থিতিশীলতার উপরও জোর দেন তারা। এজন্য, কোয়াড দেশগুলোর মধ্যকার পারস্পরিক বাণিজ্য, ভ্যাকসিনেশন প্রোগ্রাম এবং উন্নয়ন বরাদ্দ আরও বাড়ানোর বিষয়ে বিশদ মতবিনিময় করেন চার মন্ত্রী। ভারত-মার্কিন এফটিএ নিয়েও আলোচনা হয়েছে বৈঠকে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক