০৯:৫৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৬ জুলাই ২০২৪, ১ শ্রাবণ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভারত-নেদারল্যান্ডস সম্পর্কে নতুন ফুল ফুটবে: রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ

তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বর্তমানে নেদারল্যান্ডস রয়েছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। গত ০৪ এপ্রিল, সোমবার, তুর্কমেনিস্তান সফর শেষে নেদারল্যান্ডসের রাজধানী আমস্টারডামে পৌঁছান তিনি। দেশটির মহামান্য রাজা উইলেম আলেকজান্ডার এবং রানী ম্যাক্সিমার আমন্ত্রণে সেখানে ভ্রমণ করছেন বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের রাষ্ট্রপ্রধান।

এর মধ্য দিয়ে, ১৯৮৮ সালের পর এবারই প্রথম নেদারল্যান্ডস সফরে গেলেন ভারতের কোনো রাষ্ট্রপতি। সফরকালে নেদারল্যান্ডসের রাজপরিবার ছাড়াও দেশটির প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট এবং অন্য শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে কোবিন্দের।

সফরের দ্বিতীয় দিনে, মঙ্গলবার, নেদারল্যান্ডসের কেউকেনহফের বিশ্বখ্যাত টিউলিপ গার্ডেন পরিদর্শন করেন রামনাথ কোবিন্দ। সেখানে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াপকে হোয়েকস্ট্রা। সেখানে একটি হলুদ টিউলিপ ফুলের নামকরণও করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি। ফুলটির প্রজাতির নাম রাখা হয়েছে, ‘মৈত্রী’।

মূলত, নেদারল্যান্ডসের সাথে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৭৫ বছর পূর্তিতে এমন ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনার অবতারণা হয়। এজন্য ডাচ সরকার এবং জনগণের নিকট কৃতজ্ঞতাও জ্ঞাপন করেন ভারতের রাষ্ট্রপতি।

এরপর দু দেশের মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, “আজ ভারত-নেদারল্যান্ডস সম্পর্কে নতুন ফুল ফুটবে। আমরা হলুদ টিউলিপ ফুলের নাম দিচ্ছি ‘মৈত্রী’, সংস্কৃত ভাষায় যার অর্থ হল বন্ধুত্ব। গোটা বিষয়টি আমাদের সাথে ডাচ জনগণের বন্ধুত্ব এবং বন্ধনকে আরও শক্তিশালী ও দৃঢ় করবে।”

কোবিন্দ আরও বলেন, “ইউরোপের বাগান ও বিশ্ব বিখ্যাত টিউলিপের আবাসস্থল কিউকেনহফ-এ এসে আমি খুবই খুশি। বাগানটি প্রতি বছর লাখো দর্শনার্থীকে আকর্ষণ করে এবং নেদারল্যান্ডসে বসন্তের সূচনা করে। এটি উদ্যান পালনে ডাচদের দক্ষতা প্রদর্শন করে। এজন্যেই তারা বিশ্বের বৃহত্তম টিউলিপ উত্পাদক এবং রপ্তানিকারক।”

উল্লেখ্য, নেদারল্যান্ডসের লিসে পৌরসভায় অবস্থিত কেউকেনহফ জায়গাটি ইউরোপের বাগান নামেও পরিচিত। বিশ্বের বৃহত্তম ফুলের বাগানগুলোর মধ্যে একটি এটি। পার্কটি ৩২ হেক্টর এলাকা জুড়ে রয়েছে এবং বছরে প্রায় ০৭ মিলিয়ন ফুলের চারা বাগানে রোপণ করা হয়।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে পূর্বেই আজাদি কা মহোৎসব ঘোষণা দিয়েছিলো মোদী সরকার। এই প্রেক্ষিতে, জল, কৃষি, উদ্ভাবন, শক্তি, জলবায়ু এবং সংস্কৃতি সহ বিভিন্ন খাতে বিস্তৃত সহযোগিতা করতে নেদারল্যান্ডসের সঙ্গেও সম্পর্ক পুনর্মূল্যানের চিন্তা করছে সরকার।

স্বাধীনতার ৭৫ বছরে পা রাখায় এবং আজাদি কা মহোৎসব উদযাপনের অংশ হিসেবে ভারতকে ৩০০০ তাজা টিউলিপ ফুল উপহার দিয়েছে নেদারল্যান্ডস। সবগুলো ফুল জওহরলাল নেহরু ভবনের বাগানে রোপণ করা হয়েছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

ট্যাগ:

ভারত-নেদারল্যান্ডস সম্পর্কে নতুন ফুল ফুটবে: রাষ্ট্রপতি কোবিন্দ

প্রকাশ: ০৫:২৪:০৩ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ৫ এপ্রিল ২০২২

তিনদিনের রাষ্ট্রীয় সফরে বর্তমানে নেদারল্যান্ডস রয়েছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। গত ০৪ এপ্রিল, সোমবার, তুর্কমেনিস্তান সফর শেষে নেদারল্যান্ডসের রাজধানী আমস্টারডামে পৌঁছান তিনি। দেশটির মহামান্য রাজা উইলেম আলেকজান্ডার এবং রানী ম্যাক্সিমার আমন্ত্রণে সেখানে ভ্রমণ করছেন বিশ্বের বৃহত্তম গণতন্ত্রের রাষ্ট্রপ্রধান।

এর মধ্য দিয়ে, ১৯৮৮ সালের পর এবারই প্রথম নেদারল্যান্ডস সফরে গেলেন ভারতের কোনো রাষ্ট্রপতি। সফরকালে নেদারল্যান্ডসের রাজপরিবার ছাড়াও দেশটির প্রধানমন্ত্রী মার্ক রুট এবং অন্য শীর্ষ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠকের কথা রয়েছে কোবিন্দের।

সফরের দ্বিতীয় দিনে, মঙ্গলবার, নেদারল্যান্ডসের কেউকেনহফের বিশ্বখ্যাত টিউলিপ গার্ডেন পরিদর্শন করেন রামনাথ কোবিন্দ। সেখানে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াপকে হোয়েকস্ট্রা। সেখানে একটি হলুদ টিউলিপ ফুলের নামকরণও করেছেন ভারতের রাষ্ট্রপতি। ফুলটির প্রজাতির নাম রাখা হয়েছে, ‘মৈত্রী’।

মূলত, নেদারল্যান্ডসের সাথে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্কের ৭৫ বছর পূর্তিতে এমন ব্যতিক্রমধর্মী ঘটনার অবতারণা হয়। এজন্য ডাচ সরকার এবং জনগণের নিকট কৃতজ্ঞতাও জ্ঞাপন করেন ভারতের রাষ্ট্রপতি।

এরপর দু দেশের মধ্যকার সম্পর্ক নিয়ে বক্তব্য রাখতে গিয়ে ভারতের রাষ্ট্রপ্রধান বলেন, “আজ ভারত-নেদারল্যান্ডস সম্পর্কে নতুন ফুল ফুটবে। আমরা হলুদ টিউলিপ ফুলের নাম দিচ্ছি ‘মৈত্রী’, সংস্কৃত ভাষায় যার অর্থ হল বন্ধুত্ব। গোটা বিষয়টি আমাদের সাথে ডাচ জনগণের বন্ধুত্ব এবং বন্ধনকে আরও শক্তিশালী ও দৃঢ় করবে।”

কোবিন্দ আরও বলেন, “ইউরোপের বাগান ও বিশ্ব বিখ্যাত টিউলিপের আবাসস্থল কিউকেনহফ-এ এসে আমি খুবই খুশি। বাগানটি প্রতি বছর লাখো দর্শনার্থীকে আকর্ষণ করে এবং নেদারল্যান্ডসে বসন্তের সূচনা করে। এটি উদ্যান পালনে ডাচদের দক্ষতা প্রদর্শন করে। এজন্যেই তারা বিশ্বের বৃহত্তম টিউলিপ উত্পাদক এবং রপ্তানিকারক।”

উল্লেখ্য, নেদারল্যান্ডসের লিসে পৌরসভায় অবস্থিত কেউকেনহফ জায়গাটি ইউরোপের বাগান নামেও পরিচিত। বিশ্বের বৃহত্তম ফুলের বাগানগুলোর মধ্যে একটি এটি। পার্কটি ৩২ হেক্টর এলাকা জুড়ে রয়েছে এবং বছরে প্রায় ০৭ মিলিয়ন ফুলের চারা বাগানে রোপণ করা হয়।

প্রসঙ্গত, চলতি বছর ভারতের স্বাধীনতার ৭৫ বছর পূর্তি উপলক্ষ্যে পূর্বেই আজাদি কা মহোৎসব ঘোষণা দিয়েছিলো মোদী সরকার। এই প্রেক্ষিতে, জল, কৃষি, উদ্ভাবন, শক্তি, জলবায়ু এবং সংস্কৃতি সহ বিভিন্ন খাতে বিস্তৃত সহযোগিতা করতে নেদারল্যান্ডসের সঙ্গেও সম্পর্ক পুনর্মূল্যানের চিন্তা করছে সরকার।

স্বাধীনতার ৭৫ বছরে পা রাখায় এবং আজাদি কা মহোৎসব উদযাপনের অংশ হিসেবে ভারতকে ৩০০০ তাজা টিউলিপ ফুল উপহার দিয়েছে নেদারল্যান্ডস। সবগুলো ফুল জওহরলাল নেহরু ভবনের বাগানে রোপণ করা হয়েছে। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক