রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৪:১১ অপরাহ্ন

শিরোনাম
ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করলো প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা রাবিতে স্কাউট এর জনক লর্ড পাওয়েলের জন্মজয়ন্তী উদ্যাপন গ্রীণ লাইফ ব্লাড ফাউন্ডেশন উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহে কাশরে জমি নিয়ে সালিশি বৈঠক ড্রীম স্কোয়ান্ডার এসোসিয়েশন এর ১ম বর্ষপূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষ্যে সেমিনার  বিচ্ছেদের কষ্ট ভুলতে যা করছেন অভিনেত্রী সানা ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ কোরিয়ায় যে সম্প্রদায় থেকে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস সাউথ এশিয়ান ইয়ুথ ফেস্টিভালে অংশগ্রহণ করছে জাককানইবি’র চার শিক্ষার্থী মহাবিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

‘ফজলে হাসান আবেদ দেশের জন্য যথেষ্ট সম্মান নিয়ে এসেছেন’

‘ফজলে হাসান আবেদ দেশের জন্য যথেষ্ট সম্মান নিয়ে এসেছেন’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, আমি যখন প্রথমবার সরকারে আসি তখন তাকে (ফজলে হাসান আবেদ) বলেছিলাম ইউনিভার্সিটি করতে এবং একটা ব্যাংক তাকে দিয়েছিলাম। ব্র্যাক ইউনিভার্সিটি ও ব্র্যাক ব্যাংক তাকে অনুরোধ করে করিয়েছিলাম।

বৃহস্পতিবার (৯ জানুয়ারি) বিকেলে একাদশ জাতীয় সংসদের ৬ষ্ঠ অধিবেশনে সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকারের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে সংসদ নেতা এসব কথা বলেন।

জাতীয় সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর সাধারণ আলোচনায় ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা স্যার ফজলে হাসান আবেদকে স্মরণ করেছেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমি জানতাম তার দক্ষতা… তার কাজের ফলে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছিল। মৃত্যুর কিছুদিন আগে আমার সাথে দেখা করেন। অবাক লাগে তিনি আমাকে বলেছিলেন—আমি তো বেশিদিন বাঁচব না, আমি সব কাজ বুঝিয়ে দিয়ে যাচ্ছি। মেয়েকে পরিচয় করিয়ে দিয়ে গেলেন। ফজলে হাসান আবেদ দেশের জন্য যথেষ্ট সম্মান নিয়ে এসেছেন।

আওয়ামী লীগ দলীয় সংসদ সদস্য ডা. ইউনুস আলী সরকারের মৃত্যুতে শোক প্রস্তাবের ওপর সাধারণ আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, একে একে আমাদের অনেক সাথী চলে যাচ্ছে, এটা দুঃখজনক। এটাই নিয়ম, জন্মিলে মৃত্যুবরণ করতে হবে। ডা. ইউনুস আলী ছাত্রলীগের সক্রিয়কর্মী ছিলেন। এমপি হয়েও তিনি ঘুরে ঘুরে মানুষের চিকিৎসাসেবা দিয়েছেন, বিনামূল্যে ওষুধ দিয়েছেন। আরেক সদস্য ফজিলাতুন নেসা বাপ্পীও অকালে চলে গেলেন। ভবিষতে তার দক্ষ রাজনীতিবিদ হওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা ছিল।

বাপ্পীর স্মৃতিচারণ করে সংসদ নেতা বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে আমাকে যখন গ্রেফতার করে মামলা দেওয়া হয়, মামলার সমস্ত কাজের সাথে সবসময় জড়িত ছিলেন। অত্যন্ত মেধাবী ছিলেন।

প্রধানমন্ত্রী শোক প্রকাশ করেন স্থপতি রবিউল হোসেনের প্রতি। তার সম্পর্কে বলেন, শুধু স্থপতিই ছিলেন না, ভালো কবি ও সাহিত্যিক ছিলেন। সাথে সাথে সৈয়দ মুয়াজ্জেম আলী অত্যন্ত দক্ষ একজন কূটনৈতিক ছিলেন, তাকেও হারিয়েছি।

কওমি মাদরাসার সর্বোচ্চ সংস্থা আল-হায়াতুল উলি লিল-জামায়াতিল কাওমিয়া বাংলাদেশের কো-চেয়ারম্যান আল্লামা আশরাফ আলীর মৃত্যুতেও গভীর শোক প্রকাশ করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© ২০১৯ দৈনিক নবযুগ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Designed and developed by Smk Ishtiak