মঙ্গলবার, ০৪ অগাস্ট ২০২০, ০৫:৫৩ পূর্বাহ্ন

ভারতের ড্রোন ধ্বংস করলো পাকিস্তান

ভারতের ড্রোন ধ্বংস করলো পাকিস্তান

চীনের সঙ্গে সংঘাত মিটতে না মিটতেই পাকিস্তানের সঙ্গে নতুন বিতর্কে জড়াল ভারত। সোমবার পাকিস্তান সেনাবাহিনী এক বিবৃতিতে দাবি করল, ভারতের একটি ড্রোন পাকিস্তান ভূখণ্ডে ঢুকেছিল। সেটিকে গুলি করে ধ্বংস করা হয়েছে। সীমান্ত পেরিয়ে ভারতীয় ড্রোনটি পাকিস্তানে ঢুকে ছবি তুলছিল বলে পাকিস্তান সেনার দাবি। ভারত এ বিষয়ে এখনো পর্যন্ত কোনো উত্তর দেয়নি। খবর ডয়চে ভেলে’র।

লাইন অফ কন্ট্রোলের পাণ্ডু সেক্টরে ড্রোনটি দেখা গিয়েছিল বলে জানিয়েছে পাকিস্তান সেনাবাহিনী। গুলি করার পর তার ধ্বংসবশেষ পাকিস্তান সীমান্তে পড়েছে বলে জানানো হয়েছে। সীমান্ত পেরিয়ে প্রায় ২০০ মিটার ঢুকে পড়েছিল ড্রোনটি। পাকিস্তান সেনার দাবি, এ নিয়ে এ বছরে ১০টি ভারতীয় ড্রোনকে গুলি করে ধ্বংস করা হয়েছে।

গত কয়েক মাস ধরে জম্মু-কাশ্মীর সেক্টরে ভারত-পাক সীমান্তে লাগাতার গোলাগুলি চলছে। দুই দেশেরই অভিযোগ, অন্য দেশ অনাক্রমণ চুক্তি লঙ্ঘন করে গোলা বর্ষণ করছে। তারই মধ্যে কাশ্মীরে একাধিক সংঘর্ষ হয়েছে। সেনাবাহিনীর সঙ্গে হিজবুলসহ একাধিক গোষ্ঠীর সংঘর্ষ হয়েছে। তাতে দুই পক্ষেরই প্রাণহানি হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে পাকিস্তানি সেনা বাহিনীর এই বিবৃতি সীমান্তে উত্তেজনা আরো বাড়াবে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এমনিতেই গত কয়েক মাস ধরে সীমান্ত নিয়ে উদ্বিগ্ন হয়ে আছে ভারত। লাদাখ সীমান্তে চীনের সঙ্গে সংঘাত হয়েছে। কূটনৈতিক মহলে আলোচনা চললেও লাদাখ বিতর্কের অবসান হয়নি। দুই পক্ষ গালওয়ান অঞ্চল থেকে সেনা সরালেও প্যাংগং থেকে সৈন্য সরায়নি।

সেনা সূত্রের খবর, দুই পক্ষই প্রায় ৪০ হাজার সেনা মজুত রেখেছে সীমান্তের কাছাকাছি অঞ্চলে। ডেপাসং অঞ্চল থেকেও চীন সেনা সরায়নি বলে ভারতীয় সেনা সূত্র জানাচ্ছে। তারই মধ্যে শনিবার ভারতীয় উপগ্রহ কৌটিল্য অরুণাচল এবং চীনের সীমান্ত থেকে গুরুত্বপূর্ণ ছবি সংগ্রহ করেছে বলে সেনা সূত্র জানিয়েছে। সেই ছবিতে অরুণাচল এবং তিব্বতের সীমান্তে চীনা সেনার তৎপরতা লক্ষ্য করা গিয়েছে।

বালাকোটের ঘটনা এবং তারপর কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ তুলে দেওয়ার পরে ভারতের সঙ্গে পাকিস্তানের সম্পর্ক তলানিতে গিয়ে ঠেকেছে। সেই সুযোগই চীন ব্যবহার করছে বলে বিশেষজ্ঞদের অনেকেরই ধারণা। গত এক বছরে পাকিস্তানের সঙ্গে চীনের সম্পর্ক চোখে পড়ার মতো ভালো হয়েছে। ফলে শীতকালে দুই পক্ষ এক সঙ্গে ভারতের বিরুদ্ধে কঠিন পদক্ষেপ নিতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© ২০১৯ দৈনিক নবযুগ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Designed and developed by Smk Ishtiak