রবিবার, ২৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০, ০৪:০০ অপরাহ্ন

শিরোনাম
ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করলো প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীরা রাবিতে স্কাউট এর জনক লর্ড পাওয়েলের জন্মজয়ন্তী উদ্যাপন গ্রীণ লাইফ ব্লাড ফাউন্ডেশন উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পিং অনুষ্ঠিত ময়মনসিংহে কাশরে জমি নিয়ে সালিশি বৈঠক ড্রীম স্কোয়ান্ডার এসোসিয়েশন এর ১ম বর্ষপূর্তি উদ্যাপন উপলক্ষ্যে সেমিনার  বিচ্ছেদের কষ্ট ভুলতে যা করছেন অভিনেত্রী সানা ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না: প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ কোরিয়ায় যে সম্প্রদায় থেকে ছড়িয়ে পড়ছে করোনাভাইরাস সাউথ এশিয়ান ইয়ুথ ফেস্টিভালে অংশগ্রহণ করছে জাককানইবি’র চার শিক্ষার্থী মহাবিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা ও পুরস্কার বিতরণ অনুষ্ঠিত

চুক্তি স্বাক্ষর ছাড়া মস্কো থেকে ফিরলেন হাফতার, ‘শিক্ষা দেয়ার’ হুঁশিয়ারি এরদোগানের

চুক্তি স্বাক্ষর ছাড়া মস্কো থেকে ফিরলেন হাফতার, ‘শিক্ষা দেয়ার’ হুঁশিয়ারি এরদোগানের

লিবিয়ান গৃহযুদ্ধ বন্ধে যুদ্ধরত দুইপক্ষের আলোচনা আয়োজন করা হয়েছিল রাশিয়ার মস্কোতো। গতকাল সোমবার সেই আলোচনায় অংশ নেন লিবিয়ার বিদ্রোহী নেতা জেনারেল খলিফা হাফতার এবং দেশটির জাতিসংঘ স্বীকৃত সরকারের প্রধান ফায়েল আল সারাজ। আলোচনা শেষে একটি যুদ্ধবিরতি চুক্তিতে উভয় নেতার স্বাক্ষরের কথা ছিল।

কিন্তু হাফতার তাতে স্বাক্ষর না করে মস্কো ত্যাগ করেন। এর জবাবে তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রজব তাইয়েব এরদোগান বলেছেন, হাফতার মস্কো থেকে পালিয়েছে চুক্তিতে স্বাক্ষর করা ছাড়াই। যদি এখন সে আবার লিবিয়ার আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত সরকারের ওপর হামলা শুরু করে তাহলে তাকে ‘শিক্ষা দেয়া’ থেকে তুরস্ক বিরত থাকবে না।

মঙ্গলবার এক বক্তৃতায় এরদোগান বলেন, চুক্তি স্বাক্ষর না করার পর এখন স্পষ্ট লিবিয়াতে কে যুদ্ধ চায় আর কে চায় না। সারাজের নেতৃত্বে লিবিয়ার স্বীকৃত সরকারকে মদদ দিচ্ছে তুরস্ক।

অন্যদিকে পরোক্ষাভাবে হাফতারকে মদদ দিচ্ছে রাশিয়া। এছাড়া আরব আমিরাত ও মিশর সরাসরি হাফতারের পক্ষে রয়েছে। গত কিছুদিন ধরে তুরস্ক এবং রাশিয়া বিবদমান উভয়পক্ষকে যুদ্ধবিরতিতে রাজি করতে চেষ্টা করে যাচ্ছে।

সর্বশেষ চলতি সপ্তাহে মৌখিকভাবে যুদ্ধবিরতি ঘোষণাও করে উভয়পক্ষ। তবে মস্কোতে চুক্তি স্বাক্ষর না হওয়ায় নতুন করে একে অপরের ওপর হামলার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। খলিফা হাফতার চান সারাজের নিয়ন্ত্রণে থাকা রাজধানী ত্রিপোলি দখল করতে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© ২০১৯ দৈনিক নবযুগ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Designed and developed by Smk Ishtiak