সম্পর্ক বাড়াতে বাংলাদেশ সেনাপ্রধানের ভারত সফর

সম্পর্ক বাড়াতে বাংলাদেশ সেনাপ্রধানের ভারত সফর

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ বৃহস্পতিবার দিল্লিতে জাতীয় যুদ্ধ স্মৃতিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভারতীয় সশস্ত্র বাহিনীর নিহত বীরদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন পূর্বক তার ভারত সফর শুরু করেছেন। পরবর্তী তিনদিন দেশটিতে অবস্থান করবেন তিনি।

জানা গিয়েছে, সফররত সেনাপ্রধানকে সাউথ ব্লক লনে গার্ড অব অনার দেয়া হয় এবং তারপরে তিনি ভারতীয় সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মনোজ পান্ডের সাথে সাক্ষাৎ করেন।

এ সময় সেনাপ্রধানরা দুই দেশের মধ্যে ব্যাপক কৌশলগত অংশীদারিত্বের অংশ হিসেবে আন্তঃকার্যকারিতা, প্রশিক্ষণ, সন্ত্রাসবিরোধী সহযোগিতা এবং সামগ্রিক দ্বিপক্ষীয় সহযোগিতা বৃদ্ধি ও শক্তিশালীকরণ সংক্রান্ত বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন।

জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ পরে চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ জেনারেল অনিল চৌহানের সাথে সাক্ষাৎ করেন; অ্যাডমিরাল আর হরি কুমার, নৌবাহিনী প্রধান; এয়ার মার্শাল এপি সিং, ভাইস চিফ অব এয়ার স্টাফ; প্রতিরক্ষা সচিব এবং পররাষ্ট্র সচিব।

ভারতের প্রেস ইনফরমেশন ব্যুরো অনুসারে ডিফেন্স প্রোডাকশন (ডিডিপি) এবং আর্মি ডিজাইন ব্যুরো দ্বারা ভারতীয় দেশীয় প্রতিরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদন ইকো-সিস্টেম সম্পর্কেও তাকে ব্রিফ করা হয়।

সফরের সময় ভারতে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম (সিইউএনপিকে) এবং বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস সাপোর্ট অপারেশনস ট্রেনিং (বিআইপিএসওটি) এর মধ্যে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রম এবং প্রশিক্ষণ সহযোগিতার জন্য একটি ‘বাস্তবায়ন ব্যবস্থা’ সই হয়।

সফররত বাংলাদেশের সেনাপ্রধান আগামী ২৯ এপ্রিল চেন্নাইয়ের অফিসার্স ট্রেনিং একাডেমিতে ‘পাসিং আউট প্যারেড’ এর পর্যালোচনাকারী কর্মকর্তা। তিনি অফিসার্স ট্রেনিং অ্যাকাডেমি জাদুঘর পরিদর্শন করবেন এবং পাসিং আউট কোর্সের ক্যাডেটদের সাথে মতবিনিময় করবেন।

সফরকালে বাংলাদেশ সেনাপ্রধান ভারতের ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক নেতৃত্বের সাথে সাক্ষাৎ করবেন, যেখানে তিনি ভারত-বাংলাদেশ প্রতিরক্ষা সম্পর্ক বাড়ানোর উপায় নিয়ে আলোচনা করবেন। উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের সময় ভারত ও বাংলাদেশ সহযোগিতা ও সমর্থনের ঐতিহাসিক উত্তরাধিকার শেয়ার করে।

প্রতিরক্ষা পক্ষের সক্রিয় অংশগ্রহণের মধ্যে রয়েছে সার্ভিস চিফদের পর্যায়ে উচ্চ-স্তরের বিনিময়, প্রতিরক্ষা সচিবদের দ্বারা উদ্বোধনী বার্ষিক প্রতিরক্ষা সংলাপ, ত্রি-সেবা এবং পরিষেবা-নির্দিষ্ট স্টাফ আলোচনা। ঢাকা ও কলকাতায় বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে প্রতি বছর ডিসেম্বরে বাংলাদেশ মুক্তিযোদ্ধা এবং ভারতীয় যুদ্ধের যোদ্ধাদের বিনিময় পরিদর্শন হয়। খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

মন্তব্য করুন

আপনার ইমেইল প্রকাশ করা হবে না।

*