ঢাকা ০১:১৪ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২২ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ৯ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

বিশ্বব্যাঙ্কের পরিসংখ্যানে উজ্জ্বল ভারত

মোদীভক্তরা বলেন এবং বিশ্বাস করেন, মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়। বিশ্বের দরবারে ভারতকে এক অপারশক্তি দেশ বানানোর পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শুরু থেকেই। ২০১৪ সালে মসনদে আসিন হওয়ার পর থেকেই গত ৯ বছর ধরে সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে চলেছে মোদী সরকার। আর সেই লক্ষ্যে অবিচল মোদীর ভারত বিশ্ব আঙিনায় নিজেদের মাথা উঁচু করার দিকে আরও একধাপ এগোল।

বিশ্ব ব্যাঙ্কের লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্স। বিশ্বব্যাঙ্কের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। যেখানে একটি দেশের তৈরি হওয়া সামগ্রী রফতানি ও অন্য দেশ থেকে কোনও সামগ্রী সেইদেশে আমদানি কত দ্রুত ও মসৃণভাবে হয়-তার উপর নির্ভর করে তৈরি হয় এই লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্স। তবে এই দ্রুত ও মসৃণ আমদানি-রফতানিতে কয়েকটি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বব্যাঙ্ক নজরে রাখে আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে দেশে সীমান্তবর্তী নিরাপত্তার ভূমিকা, শুল্ক দফতরের ভূমিকা। শুধু তাই নয়, যে সামগ্রী আমদানি-রফতানি হয়, তার ট্র্যাকিং কতটা মসৃণভাবে হয় এবং প্রোডাক্ট শিপমেন্ট কত দ্রুত ও সঠিকসময়ে পৌঁছায়-তাও নজর রাখা হয়।

এতগুলো প্যারামিটার দেখে তবেই বিশ্ব ব্যাঙ্ক তালিকা তৈরি করে লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্সে। এবার সেই তালিকায় দুরন্ত সাফল্য ভারতের। ১৩৯টি দেশের মধ্যে এবার প্রকাশিত তালিকায় ভারতের স্থান ৩৮। ২০১৮ সালে শেষ প্রকাশিত তালিকায় ভারতের স্থান ছিল ৪৪। আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। ২০১৪ সালে মোদী সরকার যখন এদেশের মসনদে আসিন হয়নি, তখন ভারতের স্থান ছিল ৫৪। মাত্র ৪ বছরেই ১০ ধাপ উঠে এসেছিল ভারত। এবার উঠল আরও ৬ ধাপ।

আর এই উন্নতির পেছনে রয়েছে বর্তমান সরকারের নয়া নীতি। মোদী সরকারের প্রধানমন্ত্রী গতিশক্তি নীতির মূলমন্ত্রই ছিল ২০২৪-২৫অর্থবর্ষের মধ্যে আমদানি রফতানি বিষয় আরও মসৃণ থেকে মসৃণতর করার। ২০২২ সালে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নতুন প্রকল্পের সূচনা করেছিলেন। নাম জাতীয় লজিস্টিক্স নীতি। সেই নীতিরও মূল লক্ষ্য ছিল, পরিবহণসংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা মিটিয়ে আমদানি-রফতানির বিষয় দ্রুততর করা। যার ফল মাত্র ৯ বছরেই ১৭ ধাপ উপরে উঠে আসা বিশ্ব ব্যাঙ্কের লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্সের তালিকায়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই তালিকা শেষ প্রকাশ হয়েছিল ২০১৮ সালে। তারপর কোভিডের কারণে বিশ্বব্যাঙ্ক সেই তালিকা প্রকাশ স্থগিত রেখেছিল। কোভিডকালের পর এই বছরই প্রথম এই তালিকা প্রকাশ করল বিশ্বব্যাঙ্ক। যেখানে ভারতের উন্নতির ধারা উজ্জ্বল। ঈদের সকালে বিশ্বমঞ্চে ভারতের এই সাফল্যের খবর দেখে হয় মোদী ভক্তরা আবারও হয়ত বলছেন, মোদী হ্যায় তো…খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক

Tag :

Notice: Trying to access array offset on value of type int in /home/nabajugc/public_html/wp-content/themes/NewsFlash-Pro/template-parts/common/single_two.php on line 182

Write Your Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Save Your Email and Others Information

Popular Post

বিশ্বব্যাঙ্কের পরিসংখ্যানে উজ্জ্বল ভারত

Update Time : ১১:০২:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৩

মোদীভক্তরা বলেন এবং বিশ্বাস করেন, মোদী হ্যায় তো মুমকিন হ্যায়। বিশ্বের দরবারে ভারতকে এক অপারশক্তি দেশ বানানোর পরিকল্পনা প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর শুরু থেকেই। ২০১৪ সালে মসনদে আসিন হওয়ার পর থেকেই গত ৯ বছর ধরে সেই লক্ষ্যেই এগিয়ে চলেছে মোদী সরকার। আর সেই লক্ষ্যে অবিচল মোদীর ভারত বিশ্ব আঙিনায় নিজেদের মাথা উঁচু করার দিকে আরও একধাপ এগোল।

বিশ্ব ব্যাঙ্কের লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্স। বিশ্বব্যাঙ্কের একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিভাগ। যেখানে একটি দেশের তৈরি হওয়া সামগ্রী রফতানি ও অন্য দেশ থেকে কোনও সামগ্রী সেইদেশে আমদানি কত দ্রুত ও মসৃণভাবে হয়-তার উপর নির্ভর করে তৈরি হয় এই লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্স। তবে এই দ্রুত ও মসৃণ আমদানি-রফতানিতে কয়েকটি বিষয় অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। বিশ্বব্যাঙ্ক নজরে রাখে আমদানি-রফতানির ক্ষেত্রে দেশে সীমান্তবর্তী নিরাপত্তার ভূমিকা, শুল্ক দফতরের ভূমিকা। শুধু তাই নয়, যে সামগ্রী আমদানি-রফতানি হয়, তার ট্র্যাকিং কতটা মসৃণভাবে হয় এবং প্রোডাক্ট শিপমেন্ট কত দ্রুত ও সঠিকসময়ে পৌঁছায়-তাও নজর রাখা হয়।

এতগুলো প্যারামিটার দেখে তবেই বিশ্ব ব্যাঙ্ক তালিকা তৈরি করে লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্সে। এবার সেই তালিকায় দুরন্ত সাফল্য ভারতের। ১৩৯টি দেশের মধ্যে এবার প্রকাশিত তালিকায় ভারতের স্থান ৩৮। ২০১৮ সালে শেষ প্রকাশিত তালিকায় ভারতের স্থান ছিল ৪৪। আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। ২০১৪ সালে মোদী সরকার যখন এদেশের মসনদে আসিন হয়নি, তখন ভারতের স্থান ছিল ৫৪। মাত্র ৪ বছরেই ১০ ধাপ উঠে এসেছিল ভারত। এবার উঠল আরও ৬ ধাপ।

আর এই উন্নতির পেছনে রয়েছে বর্তমান সরকারের নয়া নীতি। মোদী সরকারের প্রধানমন্ত্রী গতিশক্তি নীতির মূলমন্ত্রই ছিল ২০২৪-২৫অর্থবর্ষের মধ্যে আমদানি রফতানি বিষয় আরও মসৃণ থেকে মসৃণতর করার। ২০২২ সালে খোদ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী নতুন প্রকল্পের সূচনা করেছিলেন। নাম জাতীয় লজিস্টিক্স নীতি। সেই নীতিরও মূল লক্ষ্য ছিল, পরিবহণসংক্রান্ত যাবতীয় সমস্যা মিটিয়ে আমদানি-রফতানির বিষয় দ্রুততর করা। যার ফল মাত্র ৯ বছরেই ১৭ ধাপ উপরে উঠে আসা বিশ্ব ব্যাঙ্কের লজিস্টিক্স পারফরম্যান্স ইনডেক্সের তালিকায়।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, এই তালিকা শেষ প্রকাশ হয়েছিল ২০১৮ সালে। তারপর কোভিডের কারণে বিশ্বব্যাঙ্ক সেই তালিকা প্রকাশ স্থগিত রেখেছিল। কোভিডকালের পর এই বছরই প্রথম এই তালিকা প্রকাশ করল বিশ্বব্যাঙ্ক। যেখানে ভারতের উন্নতির ধারা উজ্জ্বল। ঈদের সকালে বিশ্বমঞ্চে ভারতের এই সাফল্যের খবর দেখে হয় মোদী ভক্তরা আবারও হয়ত বলছেন, মোদী হ্যায় তো…খবর: ইন্ডিয়া নিউজ নেটওয়ার্ক