মঙ্গলবার, ০৭ এপ্রিল ২০২০, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম
কর্মকর্তারা গরিব মানুষকে আঘাত বা লাঞ্ছিত করে কি আশায়? ভালুকায় অসহায় মানুষের পাশে রয়েছে “তারুণ্যের আলো” iflixVIP সাবস্ক্রিপশন একমাস সম্পূর্ণ ফ্রি করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় ভালুকাতে ভূমিকা রেখে চলেছে “তারুণ্যের আলো” “নির্বাসন” আমাদের অনিশ্চিত জীবনেরই গল্প কর্মকর্তারা গরিব মানুষকে আঘাত বা লাঞ্ছিত করে কি আশায়? ত্রিশালে ‘করোনা’ মোকাবেলায় কাজ করছে দ্যা স্টুডেন্টস ওয়েলফেয়ার এসোসিয়েশন ভালুকায় হাত ধোয়া কার্যক্রম জনপ্রিয় করতে এগিয়ে এলো ‘তারুণ্যের আলো’ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে র‍্যাব -১৪ বিভিন্ন কার্যক্রম করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে জেলা ছাত্রলীগ নেতা হুমায়ুন কবির

করোনার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে চট্টগ্রাম

করোনার সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে চট্টগ্রাম

প্রাণঘাতী কারোনাভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে বন্দর নগর চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ বেশি ঝুঁকিতে রয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা সিভিল সার্জন শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া।

সোমবার (১৬ মার্চ) বিকেল ৪টায় চট্টগ্রাম সিভিল সার্জন কার্যালয়ে ‌‘হাম-রুবেলা টিকাদান ক্যাম্পেইন-২০২০’ উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা জানান।

ইতালিফেরত প্রবাসীদের কারণে চট্টগ্রামে ঝুঁকির পরিমাণ বেড়ে যাচ্ছে জানিয়ে শেখ ফজলে রাব্বী মিয়া বলেন, চট্টগ্রাম জেলা এই মুহূর্তে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে আছে। কারণ আমাদের দ ‘টি বন্দর, একটি বিমানবন্দর ও অপরটি সমুদ্র বন্দর। দু’টি বন্দর দিয়েই সংক্রমণের সম্ভাবনা রয়েছে। তাই এন্ট্রি পয়েন্টেই যদি সংক্রমণকারীকে ঠেকিয়ে দেয়া না যায়, তাহলে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে না।

তিনি বলেন, শাহ আমানত বিমানবন্দরে ইতিমধ্যেই থার্মাল স্ক্যানার বসানো হয়েছে। এছাড়া সমুদ্রবন্দরে হ্যান্ড থার্মাল স্ক্যানারের মাধ্যমে পরীক্ষা করা হচ্ছে। করোনাদুর্গত এলাকার মধ্যে ইতালি থেকেই সবচেয়ে বেশি প্রবাসীরা ফিরছেন। সাধারণত একজন করোনা আক্রান্ত রোগীর উপসর্গ দেখা দিতে ২ থেকে ১৪ দিন সময় লাগে। তাই বিমানবন্দরে স্ক্রিনিংয়ে করোনায় সংক্রমিত ব্যক্তি বেরিয়েও যেতে পারে। এসব কারণে আমরা বিমানবন্দর থেকে প্রতি মুহূর্তে আপডেট তথ্য নিচ্ছি এবং প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিত করতে কাজ করছি।

জেলা সিভিল সার্জন আরও বলেন, এছাড়া করোনাদুর্গত এলাকা থেকে আগত প্রবাসীদের কারও যদি শরীরে তাপমাত্রা বেশি পাওয়া যায় তাহলে সঙ্গে সঙ্গেই বিমানবন্দর থেকে তাকে হাসপাতালে পাঠানোর ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

হোম কোয়ারেন্টাইনের বিষয়ে তিনি বলেন, চট্টগ্রামের হোম কোয়ারেন্টাইন তদারকিতে একটি শক্তিশালী কমিটি কাজ করছে। এতে জেলা প্রশাসক, স্বাস্থ্য বিভাগ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও আছে। বিমানবন্দর থেকে প্রবাসফেরত যাত্রীদের তালিকা স্থানীয় প্রশাসন ও ডিজিএফআইকে সরবরাহ করা হচ্ছে। তারাই হোম কোয়ারেন্টাইনের বিষয়টি তদারকি করছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© ২০১৯ দৈনিক নবযুগ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত
Designed and developed by Smk Ishtiak